ইউপিডিএফ সংগঠক মিঠুন চাকমাকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ

0
0

চট্টগ্রাম : খাগড়াছড়ি সদরে সেনা-সৃষ্ট নব্য মুখোশ বাহিনীর সন্ত্রাসী কর্তৃক ইউপিডিএফ সংগঠক মিঠুন চাকমাকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ মিছিল করেছে  গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ।

বুধবার (৩ জানুয়ারি ২০১৮) বিকাল ৪টায় বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী জামাল খান চেরাগী পাহাড় মোড়ে অনুষ্ঠিত সমাবেশে গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সহ-সভাপতি উচিং শৈ চাক এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল (পূর্ব-৩-এর সদস্য সচিব এডভোকেট আমীর আব্বাস, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক সুকৃতি চাকমা, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল চট্টগ্রাম জেলা সদস্য সচিব সামিউল আলম, পিসিপি নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক জিকো চাকমা, পিসিপি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সুনয়ন চাকমা। সঞ্চালনা করেন পিসিপি চবি’র ছাত্র নেতা ত্রিরত্ন চাকমা।

সমাবেশে সুনয়ন চাকমা বলেন, মিঠুন চাকমাকে হত্যা করে পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণের সংগ্রামকে দমন করা যাবে না। তার এই হত্যার দায় সরকারকে নিতে হবে উল্লেখ করে তিনি হত্যার সাথে জড়িত নব্য মুখোশ বাহিনী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানান।

জিকো চাকমা বলেন, সেনাসৃষ্ট মুখোশ বাহিনীকে দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে ষড়যন্ত্র চক্রান্তের রাজনীতি কখনো সফল হবে না। তিনি মিঠুন চাকমার হত্যার বিচার দাবি করেন।

সামিউল আলম বলেন, মিঠুন চাকমা শুধু পাহাড়ে নিপীড়িত জনগণেরই নয়, সারা দেশের সকল গণতান্ত্রিক সংগ্রাম ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী সংগ্রামে তিনি ছিলেন বলিষ্ট সংগঠক। তাকে হত্যা করলেও তার অসমাপ্ত মুক্তির সংগ্রাম এগিয়ে নিতে হবে।

সুকৃতি চাকমা বলেন, মিঠুন চাকমা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করার সুযোগ পেয়েও সে সুযোগ গ্রহণ না করে নিপীড়িত জাতির মুক্তির জন্য জীবনকে উৎসর্গ করেছেন। তার এই ত্যাগ আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা।

নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত নব্য মুখোশ বাহিনী সন্ত্রাসীদেরর গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানান।

উল্লেখ্য, আজ (বুধবার) দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে খাগড়াছড়ি সদরের অপর্ণা চৌধুরী পাড়ার নিজ বাড়ি থেকে নব্য মুখোশ বাহিনীর সন্ত্রাসীরা মিঠুন চাকমাকে অপহরণ করে নিয়ে স্লুইসগেট এলাকায় মাথায় গুলি করে ফেলে রেখে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
—————–
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.