বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮
সংবাদ শিরোনাম

খাগড়াছড়িতে এইচডব্লিউএফ’র মিছিলে বিজিবি-পুলিশের হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছে সিএইচটি কমিশন

ঢাকা ।। গত ৭ জুন খাগড়াছড়ির স্বনির্ভর বাজারে হিল উইমেন্স ফেডারেশন কর্তৃক আয়োজিত শান্তিপূর্ণ্ মিছিলে বিজিবি-পুলিশের হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক আন্তর্জাতিক কমিশন(সিএইচটি কমিশন)। একই সাথে কমিশন মিছিল থেকে আটককৃত নারীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার ও কল্পনা চাকমা অপহরণের বিচারের দাবি জানিয়েছে।

chtcommission-300x105আজ মঙ্গলবার (১৩ জুন) কমিশনের কো চেয়ারপার্সন সুলতানা কামাল ও এলসা স্টামাতোপৌলো স্বাক্ষরিত সংবাদ মাধ্যমে প্রদত্ত বিবৃতিতে বলা হয়, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের তৎকালীন কেন্দ্রীয় নেত্রী কল্পনা চাকমা অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে গত ৭ জুন খাগড়াছড়ির স্বনির্ভ্র বাজারে হিল উইমেন্স ফেডারেশন কর্তৃক আয়োজিত শান্তিপূর্ণ্ মিছিলে বিজিবি-পুলিশ হামলা চালায়। এসময় মিছিলে অংশগ্রহণকারী নারীদের সাথে অশোভন আচরণ ও তাদের ওপর ব্যাপক লাঠিচার্জ্ করা হয় এবং মিছিল থেকে কমপক্ষে ২১ জনকে আটক করা হয়। পরে ১৩ জনকে ছেড়ে দিলেও বাকি ৮ জনের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা করায় পার্ব্‌ত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক আন্তর্জাতিক কমিশন গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে এবং এ ধরনের হামলা ও আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

বিবৃতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলা হয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম কমিশন আরও উদ্বিগ্ন যে, মাত্র ৫ দিন আগে রাঙ্গামাটির লংগদুতে আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর সামনে দুর্বৃ্ত্তরা পাহাড়িদের কয়েকটি গ্রামে হামলা চালিয়ে দুই শতাধিক বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ করেছে। সেসময় তারা নিষ্ক্রিয় দর্শ্‌কের ভূমিকা পালন করেছেন। অন্যদিকে একুশ বছর আগে অপহৃত হওয়া পাহাড়ি নেত্রী কল্পনা চাকমা অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানাতে গেলে খাগড়াছড়িতে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করে তাদের আহত করা হয়েছে। যে কোন গণতান্ত্রিক দেশে সভা, সমাবেশ করার প্রতিটি নাগরিকের অধিকার রয়েছে। আমাদের সংবিধানেও ৩৭ ও ৩৯.২(ক) ধারায় সমাবেশের অধিকার, বাক্-স্বাধীনতার কথা স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে। তাই সেদিন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের শান্তিপূর্ণ মিছিলে বিনা উস্কানিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যেসব সদস্য নারীদের সাথে অশোভন আচরণ ও মারধর করেছে তাদের চিহ্নিত করে সাংবিধানিক অধিকার হরণের দায়ে যথাযথ আইন প্রয়োগ করে শাস্তির ব্যব্স্থা গ্রহণ করা হোক। একইসাথে পার্বত্য চট্টগ্রাম কমিশন আটককৃত নারীদের বিরুদ্ধে করা হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহারেরও জোর দাবি জানাচ্ছে।

বিবৃতিতে কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলার পুনঃতদন্ত কাজ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে দ্রুত সম্পন্ন করে দোষীদের সাব্যস্ত করা ও তাদের বিচারেরও জোর দাবি জানানো হয়েছে।
—————
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.