খাগড়াছড়িতে জনগণের ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে সংস্কারবাদীরা অপহৃত ৪ গ্রামবাসীকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছে

0
0

খাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার পেরাছড়া ও ভাইবোন ছড়া এলাকার হাজার হাজার জনতার টানা দুই দিনের ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে আজ মঙ্গলবার (১৪ আগস্ট) দুপুরে অপহৃত ৪ গ্রামবাসীকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছে জেএসএস সংস্কারবাদী সন্ত্রাসীরা।

গতকাল সোমবার দুপুরে ভাইবোন ছড়া ইউনিয়নের দেওয়ান পাড়ায় সেনা সহায়তায় অবস্থানকারী সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান শেষে ফেরার পথে খাগড়াছড়ি শহরের মহাজন পাড়া থেকে ২নং প্রকল্প এলাকার ৪ গ্রামবাসীকে অপহরণ করে সংস্কারবাদী সন্ত্রাসীরা।

 উক্ত ঘটনার প্রতিবাদে ও অপহৃতদের উদ্ধারের দাবিতে গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে পেরাছড়া, ২নং প্রকল্প, ছোটনালা, শিব মন্দির ও জুর মরং (১৭ নম্বর) এলাকার বিক্ষুব্ধ হাজার হাজার নারী-পুরুষ, ছাত্র-যুবক, শিশু-কিশোর ও আবাল বৃদ্ধ বণিতা রাস্তায় নেমে খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়ক অবরোধ করে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত তারা রাস্তা অবরোধ করে রাখে। তবে রাতেও সড়কে কোন যানবাহন চলাচল করেনি।

অপহৃত গ্রামবাসীদের ছেড়ে না দেয়ায় আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে আবারো এলাকার হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে আসে এবং খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়ক অবরোধ করে।   

সকাল ৮টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পেরাছড়া, গিরীফুল, গাছবান ২নং প্রকল্প, ছোটনালা, শিব মন্দির, জুর মরং (১৭ নম্বর), মনিগ্রাম এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা পেরাছড়ার ধর্মপুর সংলগ্ন ব্রিজ ও গাছবান ব্রিজের পাটাতন খুলে ও রাস্তায় গাছ ফেলে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। ফলে সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

সকাল সাড়ে ৯টায় পেরাছড়া থেকে হাজার হাজার জনতা মিছিল সহকারে এসে স্বনির্ভর বাজারে অবস্থান নেয়। এ সময় তারা অপহরণকারী সংস্কারবাদী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে শ্লোগানে শ্লোগানে স্বনির্ভর এলাকা প্রকম্পিত করে তোলে। সেখানে আধা ঘন্টা অবস্থানের পর সকাল ১০টায় বিক্ষুব্ধ জনতা মিছিল নিয়ে চেঙ্গীস্কোয়ার পর্যন্ত গিয়ে সেখান থেকে পূনরায় স্বনির্ভর বাজারের চৌমুহনীতে এসে অবস্থান গ্রহণ করে। তীব্র খরা রোদ্রেও তারা রাস্তায় অবস্থান করেন। এ সময় স্বনির্ভর, উত্তর খবংপুয্যাসহ আশে-পাশের এলাকার নারীরা বিক্ষুব্ধ জনতার পাশে এগিয়ে আসেন এবং পানি-নাস্তাসহ বিভিন্ন ধরনের ফলমুল এনে খাওয়ান। অনেকে দোকানপাট বন্ধ করে বিক্ষোভকারী জনতার সাথে অংশ নেন।

এদিকে, একটি বিশেষ সূত্রে জানা যায়,  জনগণের ব্যাপক বিক্ষোভের ফলে বেকায়দায় পড়ে যায় খাগড়াছড়ি প্রশাসন। বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য প্রশাসনের উচ্চ পর্যায় হতে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে নির্দেশ প্রদান করা হয়। এমন পরিস্থিতিতে পরিকল্পনা মাফিক আজ সকাল সাড়ে ১১টায় সন্ত্রাসীরা অপহৃত ৪ গ্রামবাসীকে খাগড়াছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় গেইটের সামনে ছেড়ে দিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে পুলিশ তাদের থানায় নিয়ে গিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের খবর দেয়।

এরপর দুপুর ১২টার সময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তারা পুলিশের গাড়িতে করে ৪ গ্রামবাসীকে স্বনির্ভর বাজরে নিয়ে এসে জনতার কাছে বুঝিয়ে দেয়। এ সময় বিক্ষোভরত জনতা বিজয়োল্লাস করে এবং তাদেরকে ফুল দিয়ে সংবর্ধনা দেয়। পরে জনতা তাদেরকে নিয়ে স্বনির্ভর থেকে মিছিল সহকারে ২নং প্রকল্প গ্রামে গিয়ে গাছবান উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন পানছড়ি-খাগড়াছড়ি সড়কে এক সমাবেশ করে। এতে বিক্ষোভকারী জনতার মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন সহদেব চাকমা, কুঞ্জলতা চাকমা ও সবিনয় চাকমা।

বক্তারা বলেন, আমরা বিভিন্ন জিনিসপত্রের দোকান দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। এটা নিয়ে ছেলে মেয়েদের পড়া-লেখার ও নিজেদের সাংসারিক খরচ মিটিয়ে থাকি। কিন্তু আমাদের দোকানপাট বন্ধ রাখতে কয়েকদিন ধরে সংস্কারবাদী জেএসএস সন্ত্রাসীরা মোবাইল ফোনে হুমকি দিয়ে আসছে। ফলে আমরা গতকাল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারকলিপি দিয়েছি। কিন্তু সেখান থেকে ফেরার পথে মহাজন পাড়ায় আমাদের গাড়ি আটকিয়ে সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মুখে ৪ গ্রামবাসীকে অপহরণ করে। এর প্রতিবাদে আমরা গতকাল থেকে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেছি। আমাদের প্রতিবাদের ফলেই সন্ত্রাসীরা অপহৃত ব্যক্তিদের আজ ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছে।

এলাকাবাসী অবিলম্বে অপহরণকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানান এবং এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে এলাকায় এলাকায় গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য আহ্বান জানান।

সমাবেশ থেকে গতকাল থেকে চলা খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার এবং ভাইবোন ছড়া ও পেরাছড়া এলাকায় সকল দোকানপাট খোলা রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়।
———————-
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.