শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭
সংবাদ শিরোনাম

খাগড়াছড়ির পরিস্থিতি নিয়ে জেলা পিসিপি’র উদ্বেগ

খাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়ি জেলার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি) খাগড়াছড়ি জেলা শাখা।  গত মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭) খাগড়াছড়ি সদর এলাকায় দিনব্যাপী জেলা শাখার ৬ষ্ঠ সম্পাদক মণ্ডলী বৈঠকে এই উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

Khagrachariসম্পাদক মণ্ডলী বৈঠকে নেতৃবৃন্দ উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, খাগড়াছড়ি জেলার সাম্প্রতিক পরিস্থিতি খুবই নাজুক। এক মাসের মধ্যে জেলার পানছড়ি, দীঘিনালায় দুই নারী ও গুইমারায় এক সেটলার বাঙ্গালী খুনসহ তিনটি খুনের ঘটনা ঘটেছে। খুনের মূল কারণ খুঁজে বের না করে এই খুনের ঘটনাকে পাহাড়ি জনগণের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হচ্ছে। গুইমারায় বিএনপি ও আওয়ামীলীগ এই দুই দলের মধ্যে সংঘাতের কারণে এক ব্যক্তি খুনের ঘটনা সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হবার পরেও এই ঘটনাকে সাম্প্রদায়িক প্রলেপ দিয়ে পাহাড়ি জনগণের উপর হামলার চেষ্টা করা হয়েছে। পানছড়িতে বালাতি ত্রিপুরা খুনে জড়িত সন্দেহে এক ব্যক্তিকে আটক করার পরে এই ঘটনাকে নিয়েও উগ্র সেটলার বাঙালিরা জাতিবিদ্বেষি প্রচারণা চালাচ্ছে। খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের ছাত্রী ইতি চাকমাকে গত ফেব্রুয়ারি মাসে খুন করার পরে প্রকৃত অপরাধীকে আটক করার চেষ্টা না করে কল্পিত ‘প্রেমের কারণে খুন’ এই নাটক সাজানো হয়েছে। এই সকল ষড়যন্ত্রমুলক কার্যকলাপের মাধ্যমে প্রমাণিত হয়, জুম্ম জনগণের অস্তিত্ব রক্ষার আন্দোলনকে ধ্বংস করতে সরকার ও প্রশাসন মরিয়া হয়ে উঠেছে। নেতৃবৃন্দ সরকার ও প্রশাসনের এই ধরনের জনবিরোধী কার্যকলাপ জনসম্মুখে উন্মোচন করে দেয়ার মাধ্যমে অধিকার আদায়ের লড়াইকে এগিয়ে নিতে ছাত্র সমাজের প্রতি আহবান জানান।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, পাশের দেশ মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের বিতারণ করে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে তাতে রং ছড়িয়ে ধর্মীয় উস্কানি দেওয়া হচ্ছে। মাটিরাঙ্গায় উগ্র-সাম্প্রদায়িক ও ধর্মীয় মৌলবাদী গোষ্ঠীরা সে ইস্যুকে কেন্দ্র করে এক বৌদ্ধ ভিক্ষু ও সাধারণ মানুষের উপর হামলা চালিয়েছে।

তারা অভিযোগ করে বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারা দেশে নারী নির্যাতন চলছে, কিন্তু তা রোধ করার জন্য সরকার ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না; কিংবা অপরাধীদের গ্রেফতার করে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না। এই মাসে খাগড়াছড়ি জেলা সদরে এক সেটলার বাঙালি কর্তৃক আনন্দ নগর এলাকায় মারমা সম্প্রদায়ের এক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ করা হয়েছে। সে ঘটনায় থানায় ধর্ষণের মামলা করা হয়েছে কিন্তু এখনো পর্যন্ত দুষ্কৃতিকারীকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

নেতৃবৃন্দ বলেন, গত মার্চ মাসে খাগড়াছড়ি জেলা সদর আরাম বাগ এলাকায় খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজে ছাত্রী ইতি চাকমাকে নিজ বাসায় খুন করেছিল দুর্বৃত্তরা। ঘটনার পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে কিন্তু তদন্তের কি হল সেটি প্রকাশ করতে পারিনি। ঘটনার পরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই পর্যন্ত তিন জনকে আটক দেখানো হয়েছে। কয়েকদিন আগেও সে ঘটনার সাথে জড়িত দায়ের করে একই কলেজে এইচএসসি ২য় বর্ষের একজন ছাত্রকে আটক করেছে। প্রিন্ট মিডিয়া থেকে শুরু করে বিভিন্নœ পত্রিকায় খবর ছাপিয়ে ছিল প্রেমের ঘটনায় ব্যর্থ হওয়ায় ইতি চাকমাকে খুন করা হয়েছে। খুনীরা পিসিপিসহ বিভিন্ন আন্দোলনে অংশহগ্রহণ ও বক্তব্য রেখেছিল। প্রশাসন ও মিডিয়া কর্মীদের এসব মিথ্যা অপপ্রচার উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও  সংগঠনের ভাবমূর্তিকে বিনষ্ট করার জন্য ষড়যন্ত্রের অংশ হতে পারে বলে মন্তব্য করেন।

বৈঠকে নেতৃবৃন্দ বলেন, গণবিরোধী পার্বত্য জেলা পরিষদের অনির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বিষয়ে হাই কোর্ট থেকে স্থিতাবস্থা  জারি রাখার জন্য নোটিশ দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমেই স্পষ্ট হয়েছে সেখানে যথেষ্ট দুর্নীতি-অনিয়ম হয়েছিল। ছাত্র সমাজ ন্যায়ের পক্ষে থেকে সে দুর্নীতি ও ঘুষ বাণিজ্য মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগের বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকে আন্দোলন গড়ে তুলেছে। ফলে পরিষদে এমন অনৈতিক কার্যক্রম বন্ধ করতে নির্দেশ এসেছে। তারা আগামীতে শত প্রতিকূল ও বাধা মোকাবেলা করে স্বার্থন্বেষী মহলের সকল ধরনের অন্যায়, অনৈতিক, দুর্নীতি-অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকে আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য ছাত্র সমাজের প্রতি আহ্বান জানান।

বৈঠক থেকে নেতৃবৃন্দ, সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে তিন খুনের ঘটনায় প্রকৃত খুনীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির, বৌদ্ধ ভিক্ষুক ও সাধারণ মানুষের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার করে সুষ্ঠু বিচার, জেলা শহরে প্রতিবন্ধী কিশোরীর ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িত  ধর্ষক শাহাদাৎকে দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির প্রদানে দাবি জানানো হয়।  এছাড়াও খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের ছাত্রী ইতি চাকমার খুনের ঘটনায় কোন সংগঠনের বিরুদ্ধে  উদ্ধেশ্য প্রণিতভাবে ষড়যন্ত্র না করে সষ্ঠু তদন্তের পর পুলিশি তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির প্রদানের জন্য জোর দাবি জানান।

নেতবৃন্দ, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের বিতারণের পর বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রাসহ সারাদেশে যে বিরাজ পরিস্থিতি উগ্রসাম্প্রদায়িক ও ধর্মীয় মৌলবাদী গোষ্ঠীদের অপতৎপরাতা চলছে তা বন্ধ করতে প্রশাসনের কঠোর অবস্থান গিয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ এবং সনাতন ধর্মালম্বীদের শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসবে নিরাপত্তা জোরদার করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান।

পিসিপি’র খাগড়াছড়ি জেলা শাখার দপ্তর সম্পাদক সমর চাকমা স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
————-
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *