খাগড়াছড়ির পানখাইয়া পাড়ায় প্রসিত বিকাশ খীসার নির্বাচনী সভা

0
0

সিএইচটিনিউজ.কম

খাগড়াছড়ি: আসন্ন সংসদ নির্বাচনে খাগড়াছড়ি আসনে ইউপিডিএফ মনোনীত হাতি প্রতীকের প্রার্থী প্রসিত বিকাশ খীসা গতকাল ৩০ ডিসেম্বর সোমবার জেলা সদরের পানখাইয়া পাড়ার জনগণকে নিয়ে নির্বাচনী সভা করেছেন।

10 electionমারমা সংসদ মাঠে বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন পানখাইয়া পাড়ার মুরুব্বী ও মেম্বার মংশি মারমা, বিশিষ্ট মুরুব্বী কিরণ মারমা, মধুপুর গ্রামের কার্বারী বিমল কান্তি চাকমা, পানছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা ও ইউপিডিএফের কেন্দ্রীয় নেতা সচিব চাকমা।

এছাড়া সভায় ইউপিডিফের কেন্দ্রীয় সদস্য প্রদীপন খীসা, নির্বাচন পরিচালনা কমিটি-খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা’র আহ্বায়ক ক্ষেত্রমোহন রোয়াজা, সদস্য সচিব দীপায়ন চাকমা ও মহালছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সোনারতন চাকমা।

সভায় প্রসিত বিকাশ খীসা বলেন, সাতভাইয়া পাড়া, সাজেক, রামগড়ের শনখোলা পাড়া এবং সাম্প্রকিকালে তাইন্দং ঘটনায় আমরা দেখেছি, যারা নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে, অনেক গালভরা ওয়াদা দিয়ে মানুষের ম্যান্ডেট হাতিয়ে নিয়েছে তারা মানুষের দুর্দিনের পাশে দাঁড়ায়নি। তারা এলাকার জনগণের কথা তারা ভুলে গেছে, নিজ সমাজ জাতির কথা তারা ভুলে গেছে। তারা তাদের দলীয় কর্মসূচী, দলীয় পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজে ব্যস্ত থেকেছে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের জাতীয়তা কেড়ে নিয়ে আমাদেরকে বাঙালি বানানো হয়েছে। আমাদের শিশুরা যারা স্কুলে যাচ্ছে, এখানে খেলা খেলছে, দুষ্টমি করছে তাদের ভবিষ্যত কি হবে? পঞ্চম শ্রেণীতে যদি পাশ করে তখন তাদের সার্টিফিকেটে জাতীয়তা লিখতে হবে বাঙালি। যারা অষ্টম শ্রেণী পাস করছে তাদেরও জাতীয়তা লিখতে হবে বাঙালি বলে। আর যারা এসএসসি, চাকরি, উচ্চ শিক্ষায় বা বিদেশে যেতে চায় পাসপোর্টেও লেখা থাকবে জাতীয়তা বাঙালি। এই কি হতে চাই আমরা? আমরা কি আমাদের এই চেহারা, আমাদের ধর্ম, আমাদের সংস্কৃতি, আমাদের যে বৈশিষ্ট্য এগুলো জলাঞ্জলি দিয়ে বিলুপ্ত হয়ে যেতে চাই?  কি  করেছেন আমাদের এই পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা? তারাই এই বিতর্কিত, ঘৃণিত পঞ্চদশ সংশোধনী আইনকে সমর্থন দিয়ে এসেছেন।

তিনি বলেন, আমাদের বাপ-দাদার চৌদ্দ পুরুষের যে জায়গা, আমাদের যে প্রিয় ভূমি এখানে যদি আমরা থাকতে চাই, নিজের সমাজে, নিজের জায়গায় অধিকার নিয়ে, মান-সম্মান নিয়ে এবং জানমাল নিয়ে যদি আমরা বাঁচতে চাই, তাহলে আমাদের অবশ্যই এক এবং ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমাদের বাঁচার যে দাবি, বাঁচার যে কর্মসূচি সেই ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রায় দিতে হবে।

তিনি বলেন, সংবিধানে আমাদের দাবি-দাওয়া, জাতিসত্তার স্বীকৃতির কথা লেখা থাকার কথা কিন্তু সে বিষয়গুলো বাদ দেওয়া হয়েছে। এই সংবিধানে বা রাষ্ট্রীয় দলিলে পার্বত্য চট্টগ্রামের সকল জাতিসত্তার  ত্রিপুরা, মারমা, চাকমা, খিয়াং, খুমি, মুরুং চাক, বম পাংখো সহ দেশের অন্যান্য জাতিসত্তাগুলোর অধিকার দিতে হবে। তারাও যে জাতি, তারাও যে নাগরিক, তারাও যে মানুষের মতো বাঁচতে চায় তাদেরকে সেই অধিকার দিতে হবে। তাদের উপর যদি অন্যায়ভাবে কিছু করা হয় তাহলে তার জন্য তাদের প্রতিবাদ করার গণতান্ত্রিক অধিকার খর্ব করা যাবে না। এ কথাগুলো বলার জন্য আমাদের প্রতিনিধি দরকার।

তিনি ইউপিডিএফের দাবি এবং কর্মসূচির ভিত্তিতে পার্বত্য চট্টগ্রামে আন্দোলন গড়ে তুলতে হাতি মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার জন্য সকলের প্রতি সবিনয়ে আবেদন জানান।

সভায় পানখাইয়া পাড়ার মুরুব্বী মংশি মারমা বলেন, বিগত সময়ে আওয়ামী লীগ, বিএনপি-কে ভোট দিয়ে সংসদে পাঠিয়েছি। এতে ক্ষতি ছাড়া কোন লাভ হয়নি। আওয়ামী লীগ আমাদের বাঙালি বানিয়েছে। যা আমরা কোনভাবে মানতে পারি না। এ অন্যায়ের প্রতিবাদ জানাতে হাতি মার্কায় ভোট দিতে হবে। এছাড়া আর কোন বিকল্প নেই।

তিনি বলেন, খাগড়াছড়ি আসনে যারা প্রার্থী হয়েছেন তাদের মধ্যে প্রসিত বিকাশ খীসাই একমাত্র যোগ্য প্রার্থী। কাজেই, প্রসিত বিকাশ খীসাই হচ্ছেন জুম্মজনগণের প্রার্থী। আশা করি খাগড়াছড়িবাসী এবার হাতি মার্কায় ভোট দিয়ে প্রসিত বিকাশ খীসাকে জয়যুক্ত করবে। আগামী ৬ জানুয়ারি ২০১৪ আমরা তাকে বিজয়ের মালা পরিয়ে দিতে পারবো।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.