দীঘিনালায় বিজিবি কর্তৃক দখলকৃত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পুনরুদ্ধারের দাবিতে ছাত্র-ছাত্রীদের স্মারকলিপি

0
1

সিএইচটিনিউজ.কম
DSC05755দীঘিনালা: খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার ৪নং দীঘিনালা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের যত্ন কুমার কার্বারী পাড়ায় অবস্থিত বিজিবি কর্তৃক জোরপূর্বক দখলকৃত ২নং বাঘাইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পুনরুদ্ধারপূর্বক বিদ্যালয়ে পড়াশুনার সুষ্ঠু পরিবেশ সুনিশ্চিত করার দাবিতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর বরাবরে স্মারকলিপি দিয়েছে উক্ত বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীরা।

আজ ৬ আগস্ট বুধবার সকাল ১০টায় ২নং বাঘাইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অধ্যয়নরত ছাত্র/ছাত্রী ও অভিভাবকবৃন্দ  দীঘিনালা কলেজ গেইট সংলগ্ন চৌমুহনী হতে মিছিল সহকারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে ইউএনও’র মাধ্যমে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর বরাবরে এ স্মারকলিপি পেশ করেন।

স্মারকলিপিতে তারা বলেন, ‘সম্প্রতি বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর একটি ব্যাটালিয়ন সদর দপ্তর স্থাপনের জন্য ৫১ নং দীঘিনালা মৌজায় যত্ন কুমার কার্বারী পাড়া ও শশী মোহন কার্বারী পাড়ায় ২৯.৮১ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। কিন্তু উকত পরিমাণ জমির বাইরেও বিজিবি ২ নং বাঘাইছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাঠামোসহ দুই একর ও অপর এগার জন ব্যক্তির অনির্দিষ্ট পরিমাণ জমিরও দখল নেয়। গত ১০জুন ২০১৪ এই জমি অধিগ্রহণ ও দখলের বিরুদ্ধে স্থানীয় জনগণ প্রতিবাদ জানালে বিজিবির ৫১ ব্যাটালিয়নের সদস্য, পুলিশ ও বিজিবির নিয়োজিত শ্রমিকরা তাদের উপর হামলা চালায়। এই ঘটনার পর বিজিবি স্কুলের ভবনসহ (ছাদ ধালাই করা পাকা দালান) জমি তাদের দখলে নেয় এবং অধিগ্রহণকৃত জমির সাথে তা অন্তর্ভুক্ত করে চারপাশে কাঁটাতারের বেড়া দেয়। এরফলে স্কুলটি পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়।’

স্মারকলিপিতে তারা আরো বলেন, ‘বিদ্যালয়টি সরকারী রেজিষ্ট্রিকৃত এবং তদানিন্তন পাকিস্তান সরকারের আমলে ১৯৬৭ সনে স্থাপিত।  তখন স্কুলটির নাম ছিল কায়দে আজম মো: আলী জিন্নাহ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্বাধীনতার পর এর নাম পরিবর্তন করে ২নং বাঘাইছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় করা হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিদ্যালয়টি আমাদের এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়াতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে আসছে। এই স্কুল থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করে অনেকে পরবর্তীতে উচ্চ শিক্ষা লাভ করেছে। বর্তমানেও আমরা ১০৫ জন শিক্ষার্থী নিয়মিত অধ্যয়ন করছি।

গোবিন্দ কার্বারী পাড়া, ধনুর্ধর কার্বারী পাড়া, যত্ন কুমার কার্বারী পাড়া ও শশী মোহন কার্বারী পাড়া-এই চার গ্রামের ছেলেমেয়েরা এই বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করার কথা উল্লেখ করে স্মারকলিপিতে তারা বলেন, ‘এলাকায় এই বিদ্যালয়টি ছাড়া আর কোন প্রাইমারী স্কুল নেই। গত ১০ জুন ২০১৪ স্থানীয় এলাকাবাসীর উপর বিজিবির এক অপ্রত্যাশিত হামলার পর থেকে নিরাপত্তার কারণে আমাদের পড়াশুনা প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। ইচ্ছা থাকা সত্বেও আমরা বিদ্যালয়ে যেতে পারছিনা। আমরা খবর পেয়েছি যে, নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকে প্রাথমিক স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা শুরু হবে। আমাদের বিদ্যালয়ে যদি দ্রুত শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে দেয়া না হয় তাহলে আমাদের ভবিষ্যৎ পুরোপুরি অন্ধকার বলে আমরা মনে করছি এবং আমরা বার্ষিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা থেকেও বঞ্চিত হবো।

স্মারকলিপিতে তারা ২ দফা দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো:  ক. বিজিবির ব্যাটালিয়ন ৫১ কর্তৃক দখলকৃত ২ নং বাঘাইছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি রমজানের ছুটি শেষ হওয়ার পূর্বে অর্থাৎ আগামীকাল থেকে পুনদ্ধরুার বা দখলমুক্ত ও চালু করে আমাদের ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে আমাদের শিক্ষা জীবন সুনিশ্চিত করুন, খ. বিজিবির ব্যাটালিয়ন ৫১ এর সদর দপ্তর অন্যত্র স্থাপনের জন্য সরকার ও বিজিবির কাছে জোর সুপারিশ করে আমাদের বিদ্যালয়ের অতীতের শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে দেয়ার জন্য অনতিবিলম্বে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করুন।
————–

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।

 


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.