মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
সংবাদ শিরোনাম

ঢাকায় দুই দিন ব্যাপী ২২তম কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সম্পন্ন

পিসিপি’র ২৩ সদস্যের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি : সভাপতি সিমন, সম্পাদক বিপুল

সিএইচটি নিউজ ডটকম
PCP new central committee2ঢাকা: ঢাকার পুরানা পল্টনস্থ মুক্তি ভবন হল রুমে আয়োজিত বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)-এর দুই দিন ব্যাপী ২২তম কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সম্পন্ন হয়েছে। এতে সিমন চাকমা সভাপতি ও বিপুল চাকমা সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

গতকাল ছিল কাউন্সিলের উদ্বোধনী অধিবেশন ও র‌্যালি। আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) দ্বিতীয় দিনে সকাল ৮টায় যথারীতি পিসিপি সভাপতি থুইক্যচিং মারমার সভাপতিত্বে ও সহ:সাধারণ সম্পাদক সুকৃতি চাকমার পরিচালনায় কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় মঞ্চে লড়াই সংগ্রামে দৃপ্ত আহ্বান সম্বলিত বিশাল ব্যানার ও ফেস্টুন সজ্জিত ছিল। কাউন্সিল অধিবেশনে অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধি ও পর্যবেক্ষকগণের মধ্যে সংগ্রামী উদ্দীপনা ছিল লক্ষ্যণীয়। অধিবেশনে ভাব গাম্ভীর্য পরিবেশ উপস্থিত সবাইকে সংগ্রামী চেতনায় উজ্জীবিত করে তোলে। ব্যানারের শ্লোগান ছিল “পলায়নবাদী, অর্পিত দায়িত্ব পালনে অক্ষম, ব্যক্তিস্বার্থান্বেষী, সুযোগসন্ধানী, দোদুল্যমান, নীতিহীন সুবিধাবাদী, দুর্নীতিপরায়ন, আপোষকামী, দালাল ও প্রতিক্রিয়াশীল চরিত্রসম্পন্ন কর্মীদের মুখোশ উন্মোচন করে দিন। বিপ্লবী বুলি আওড়িয়ে তারা যে স্তরে কিংবা যে পদেই অধিষ্ঠিত থাকুক, দৃঢ়তার সাথে তাদের ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে সংগঠনকে অধিকতর সুসংগঠিত ও শক্তিশালী করুন!”

অধিবেশনের শুরুতে সাধারণ সম্পাদক রিটন চাকমা সম্পাদকের রিপোর্ট পেশ করেন। সাধারণ সম্পাদকের রিপোর্টের ওপর আলোচনা-পর্যালোচনা ও তা আনুষ্ঠানিকভাবে গৃহীত হবার পর পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত প্রতিনিধিরা নিজ নিজ এলাকার সাংগঠনিক কার্যক্রম নিয়ে বক্তব্য পেশ করেন। প্রতিনিধিদের পর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এরপর সন্ধ্যা ৬টার সময় সবার সম্মতিক্রমে ২৩ সদস্য বিশিষ্ট্য নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে সিমন চাকমাকে সভাপতি, বিপুল চাকমাকে সাধারণ সম্পাদক এবং অনিল চাকমাকে সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়েছে। নতুন কমিটিকে শপথ বাক্য পাঠ করান বিদায়ী কমিটির সভাপতি থুইক্যচিং মারমা।

কাউন্সিলে দ্বিতীয় দিনে বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে দিন দিন দমন-পীড়ন তীব্র হচ্ছে। সেনাবাহিনী অন্যায়ভাবে ধরপাকড় নির্যাতন চালাচ্ছে। একই সাথে সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ মদদে মহালছড়ি, মানিকছড়ি রামগড়সহ বিভিন্ন জায়গায় সেটলাররা ভূমি বেদখলের মহোৎসব চালিয়ে যাচ্ছে। এর পূর্বে বিজিবি বাবুছড়ায় ৫১ব্যাটালিয়নের সদর দপ্তর নির্মাণের নামে পাহাড়িদের নিজ বাস্তুভিটা থেকে উচ্ছেদ করেছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর দমন-পীড়ন চালানোর সনদপত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অগণতান্ত্রিক ‘১১ নির্দেশনা’ জারির পর এসব অন্যায় জোরজবরদস্তি বৃদ্ধি পেয়েছে বলে বক্তারা অভিযোগ করেন। বক্তারা অন্যায় এই নির্দেশনা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, বর্তমান সরকার ফ্যাসীবাদী কায়দায় জনগণকে শাসন করছে। তার ফলস্বরূপ একের পর এক গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করে চলেছে। একদিকে সরকার ফ্যাসীবাদী রাজত্ব কায়েম করেছে, অন্যদিকে দুর্নীতিবাজদের দৌরাত্মও বৃদ্ধি পেয়েছে, যা সরকারের ছত্রছায়ায় চলছে। মেডিকেলের ভতির্ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস তারই নমুনা মাত্র। আরো কত দুর্নীতি চলছে তার কোন ইয়ত্তা নেই। বক্তারা মেডিকেলের প্রশ্ন ফাঁসের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবি জানান।

কাউন্সিল অধিবেশনে বিদায়ী ভাষণ দেন থুইক্যচিং মারমা। তিনি বলেন, রাষ্ট্রের দমন-পীড়ন তথা শোষিত শ্রেণীর প্রতিনিধি হিসেবে এবং শিক্ষা সংক্রান্ত ৫ দফা দাবী আদায়ে ছাত্র সমাজকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।নতুন কমিটির সভাপতি সিমন চাকমা তার বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রামে পূর্ণস্বায়ত্তশাসন আদায়ের সংগ্রাম জোরদার করার পাশাপাশি ছাত্রদের শিক্ষা সংক্রান্ত সকল জাতীয় ইস্যুতে পিসিপি সামনের সারিতে থাকবে বলে দৃপ্ত প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তিনি ছাত্র সমাজকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং অধিকার আদায়ের আন্দোলনে সামিল হওয়ার আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে পিসিপি’র বিভিন্ন শাখার নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি ইউপিডিএফ, যুব ফোরাম ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গতকাল রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহাসিক বটতলায় কাউন্সিলের উদ্বোধনী পর্ব শেষে র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলের পর্বে কাউন্সিল অধিবেশনে সংগঠনের অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা সম্পাদিত হয়েছিল।
——————

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।