রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮
সংবাদ শিরোনাম

বরখাস্ত অন্যায্য, আইনগত প্রক্রিয়ায় লড়বো- সুপার জ্যোতি চাকমা

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্খানীয় সরকার বিভাগ থেকে জারিকৃত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে লক্ষীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব থেকে সুপার জ্যোতি চাকমাকে সাময়িভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। গত ২৩ মে, ২০১৭ সিনিয়র সহকারী সচিব লুৎফুন নাহার স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে সর্বমোট চারটি কারণ দেখিয়ে তাকে বরখাস্ত করা হয়।

superjyotichakmaপ্রজ্ঞাপনে বলা হয়, উদ্ধারকৃত অস্ত্রের বৈধ কাগজপত্র না থাকায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয় এবং উক্ত মামলা তদন্তপূর্বক অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা থাকায় আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করায়, বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক অভিযোগপত্র গ্রহীত হওয়ায়, অবৈধ অস্ত্র থাকা জনস্বার্থের পরিপন্থী বলে সরকার মনে করায় উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮ উপজেলা পরিষদ(সংশোধন) আইন, ২০১১ দ্বারা (সংশোধিত) এর ১৩খ (১) ধারা অনুসারে তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

তবে সাময়িক বরখাস্তের প্রজ্ঞাপন জারিকে অন্যায্য আখ্যায়িত করে এর বিরুদ্ধে আদালতের মাধ্যমে সুরাহা করে পুনঃদায়িত্ব প্রাপ্তির বিষয়ে উদ্যোগ নেবেন বলে জানিয়েছেন লক্ষীছড়ি উপজেলার সদ্য বরখাস্তপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা। তিনি বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে গত ০২ জানুয়ারি, ২০১৭ দায়ের করা মামলা মিথ্যা, সাজানো ও বানোয়াট। তিনি বলেন, মূলত, লক্ষীছড়ি এলাকার জনগণের পক্ষ হয়ে আপোষহীনভাবে ভুমিকা রাখার কারণে এবং সকল ধরণের অন্যায়, অন্যায্যতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার কারণে তাকে এই ধরণের মামলা প্রদান করা হয়েছে। তিনি বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যানের সরকারী বাসভবন থেকে অস্ত্র ও গুলি উদ্ধারের ঘটনা সাজানো এবং মিথ্যা প্রমাণের জন্য তিনি আদালতে লড়বেন।
তিনি জনগণের সহায়তা নিয়ে এই অন্যায্যতার বিরুদ্ধে লড়বেন বলেও দৃঢ় প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, লক্ষীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমাকে গত ১ জানুয়ারি দিবাগত রাত ২টায় লক্ষ্মীছড়ি জোনের একদল সেনা সদস্য উপজেলা সদরের সরকারি বাসভবন ঘেরাও করে দরজা ভেঙে ‘অস্ত্র উদ্ধার নাটক’ সাজিয়ে সুপার জ্যোতি চাকমাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর তাকে সেনা জোনে নিয়ে গিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। পরদিন সকালে তাঁকে লক্ষ্মীছড়ি থানায় হস্তান্তরের পর মিথ্যা অস্ত্র মামলা দিয়ে খাগড়াছড়ি জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।
তাঁকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে লক্ষীছড়ি উপজেলাসহ খাগড়াছড়ি জেলায় ব্যাপক প্রতিবাদ বিক্ষোভ সংঘটিত হয়। গ্রেপ্তারের এক মাসের মধ্যে গত ০১ ফেব্রুয়ারি আদালত তাকে মুক্তি প্রদান করেন।
——————
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.