বান্দরবানে বৌদ্ধ মন্দিরসহ ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে জঙ্গি হামলার আতঙ্ক

0
0

সিএইচটিনিউজ.কম
Bandarban2বান্দরবানে বৌদ্ধ মন্দিরসহ বিভিন্ন ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে জঙ্গি হামলার আতঙ্ক বিরাজ করছে।

শনিবার (২৫ এপ্রিল) সকালে কৃষ্ণ ভট্টাচার্য নামে গোয়েন্দা পুলিশের দায়িত্বশীল মাঠকর্মী বান্দরবান খ্যংওয়া কিয়ং  (রাজ বিহার),উজানি পাড়া বৌদ্ধ মন্দিরসহ বিভিন্ন বৌদ্ধ মন্দিরে গিয়ে জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় সতর্ক বার্তা জানানোর পর বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের মধ্যে এই আতঙ্ক দেখা দেয়।

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের দায়ক মংশৈপ্রু মারমা জানান, বান্দরবানে বৌদ্ধ ধর্মীয় অনুসারীদের  গুরুত্বপূর্ণ বৌদ্ধ স্থাপনা বুদ্ধ ধাতু জাদী (স্বর্ণ মন্দির), রাম জাদী, নন্দগ্রীঃ জাদী,ক্যমলং জাদী,খ্যংওয়া কিয়ং (রাজ বিহার),পঞ্ঞা পাসনা রামবিহারসহ অনেক মল্যবান ধর্মীয় স্থাপনা রয়েছে। বছরে এই সব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতে একাধিকবার বড়-বড় পূজার উৎসব হয়। প্রতি বারে পূজার সময় কয়েক হাজার বৌদ্ধ নর-নারী সমাবেত হয়। জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় পুলিশের পক্ষ থেকে সতর্ক বার্তা জানানোর পর আমরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছি।

উজানি পাড়া বৌদ্ধ মন্দিরের পাশে ব্যবসায়ী তুফান মারমা জানান, উজানি পাড়া বৌদ্ধ মন্দিরের ভেতরে সম্প্রতি জঙ্গি চেহারার অনেক লোকজনের প্রবেশ বাড়ছে। তারা নিজেদের দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পর্যটক পরিচয় দিয়ে থাকেন। আমি শনিবারে সারা রাত ঘুমাতে পারেনি। অজানা আতঙ্কে নির্ঘুম ছিলাম।

এদিকে, পুলিশের পক্ষ থেকে বৌদ্ধ মন্দিরসহ ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে জঙ্গি হামলার সতর্ক বার্তা জানানোর পর শনিবার রাতে বান্দরবান শহরে উজানি পাড়া এলাকায় পঞ্ঞাপাসনা রাম বিহারে অধ্যক্ষ উ পঞ্ঞাজোত মহাথের এর উদ্যোগে বৌদ্ধ নর-নারীদের নিয়ে এক প্রার্থণা সভা আয়োজন করা হয়।এতে বান্দরবানে বৌদ্ধ মন্দিরসহ বিভিন্ন ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে জঙ্গি হামলা প্রস্তুতির মত নাশকতা কর্মকান্ড পন্ড করে দেয়ার প্রার্থণা করা হয় এবং বান্দরবানসহ সারা দেশে এধরনের জঙ্গি অপতৎপরতা বন্ধ ও শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য ভগবানের কাছে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

পুলিশ সুপার দেবদাস ভট্টাচার্য জঙ্গি হামলার আশঙ্কার তথ্যটি নিশ্চিত করে  বলেন,সতর্ক থাকতে হবে। বৌদ্ধ মন্দির,উপাসনালয়, বুদ্ধ ধাতু জাদীসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বৌদ্ধ ধর্মীয় স্থাপনাগুলোতে জঙ্গি হামলার আশঙ্কার তথ্য রয়েছে পুলিশের হাতে। জঙ্গির এই নাশকতা ঠেকাতে পুলিশের পক্ষ থেকে কী ব্যবস্থা নিয়েছেন এমন প্রশ্নে পুলিশ সুপার বলেন, ইতোমধ্যে হামলার সম্ভাব্য বৌদ্ধ মন্দিরসহ ধর্মীয় স্থাপনাগুলোর আশে-পাশে নিরাপত্তার ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। শহরের প্রবেশ দ্বারে বিভিন্ন স্পটে অস্থায়ী চেকপোষ্ট বসানো হয়েছে। তাছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে সাদা পোষাকে গোয়েন্দা পুলিশের নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

[নোট: খবরটি গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় সিএইচটি২৪.কম থেকে কপিপেষ্ট করা হয়েছে।]

———————–

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.