বিজয় দিবসের রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান বয়কটের ঘোষণা ইউপিডিএফের

0
0

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিএইচটিনিউজ.কম

পার্বত্য চট্টগ্রামে পূর্ণস্বায়ত্তশাসনের দাবিতে আন্দোলনরত আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল ইউনাইটেড পিপল্‌স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) আগামীকাল ১৬ ডিসেম্বর ফ্যাসীবাদী সরকারের আয়োজিত কুচকাওয়াজ, ক্রীড়া ও বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানসহ সকল রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান বয়কটের ঘোষণা দিয়েছেআজ ১৫ ডিসেম্বর বৃহঃস্পতিবার ইউপিডিএফ-এর কেন্দ্রীয় দপ্তর থেকে সংবাদ মাধ্যমে প্রদত্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ ঘোষণার কথা জানানো হয়সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ষড়যন্ত্রে পা দিয়ে সাম্প্রদায়িক সংঘাতে জড়িয়ে না পড়তে পাহাড়ি-বাঙালি ও সেটলারদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ইউপিডিএফ-এর কেন্দীয় কমিটির পক্ষ থেকে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দেশবাসীর প্রতি সংগ্রামী অভিবাদন, মুক্তিযুদ্ধে নিহত অগণিত বীর শহীদদের আত্মত্যাগের প্রতি গভীর সম্মান ও শ্রদ্ধা জানানো হয়কিন্তু ক্ষমতাসীন সরকারের উগ্র জাতীয়তাবাদী ফ্যাসিস্ট কালাকানুন প্রবর্তনের কারণে ইউপিডিএফ এই সরকারের অধীনে আয়োজিত কোন রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বলে জানানো হয়

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাঘাইছড়িতে অজ্ঞাত ব্যক্তির হাতে এক সেটলার খুনের জের ধরে ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে দীঘিনালায় চিকন মিলা চাকমা (৫০)-কে হত্যা এবং বাঘাইছড়িতে বিভিন্ন জায়গায় পাহাড়িদের উপর হামলা-জখমের জন্য ইউপিডিএফ তীব্র নিন্দা জানিয়েছে এবং জনগণের নিরাপত্তা ও জানমাল রক্ষার্থে ব্যর্থতার জন্য সরকার-প্রশাসনকে দায়ি করেছে

ইউপিডিএফ-এর কেন্দ্রীয় প্রেস সেকশন থেকে প্রেরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ৭১-এ পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার-আলবদর বাহিনীর মানবতাবিরোধী বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞের অপরাধে যুদ্ধাপরাধী হিসেবে বিচার হওয়া অত্যন্ত যৌক্তিক অভিমত ব্যক্ত করে আরও বলা হয়, ‘মুক্তিযুদ্ধের সপরে দল হিসেবে দাবি করলেও আওয়ামী লীগ আসলে পাক শাসকগোষ্ঠীর উগ্রমূর্তি ধারণ করেছেপার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনী মোতায়েন ও সেটলার লেলিয়ে দিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বিভিন্ন সময়ে হত্যাযজ্ঞ ও সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা-হাঙ্গামায় উস্কানি প্রদান অব্যাহত রেখেছেএ বছর ১৯, ২০ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি সাজেক-খাগড়াছড়ি, ১৭ এপ্রিল রামগড় শনখোলা পাড়া এবং গতকাল ১৪ ডিসেম্বর ঘটনা তার প্রমাণ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘বিতর্কিত পঞ্চদশ সংশোধনী বিল পাসের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের অন্যান্য সংখ্যালঘু জাতিসত্তাসমূহের অস্তিত্ব পুরোপুরি অস্বীকার করে বাঙালি জাতীয়তা চাপিয়ে দেয়া হয়েছেদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ বৃহত্তর বাঙালি জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকারও একে একে হরণ করছেএটি একটি গণবিরোধী, উগ্র জাতীয়বাদী ও ফ্যাসিস্ট সরকার

সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত বিজ্ঞপ্তিতে ইউপিডিএফ-এর কেন্দ্রীয় কমিটি ক্ষমতাসীন সরকার জনগণের সমর্থন হারিয়েছে মন্তব্য করে আরও বলেছে, ‘এ সরকার ফ্যাসিস্ট কায়দায় নিছক সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সকল সংখ্যালঘু জাতির ওপর কালাকানুন চাপিয়ে দিচ্ছেকাজেই গণবিরোধী স্বৈরাচারি এ সরকারের রাষ্ট্রীয় নির্দেশ জারি করার বৈধতা নেইসরকারের অবৈধ নির্দেশ মানতে জনগণ বাধ্য নয়পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণ এ সরকারের অধীনে কোন রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে অংশ নেবে না

এখানে উলেখ করা যেতে পারে, বিগত ৩০ জুন জাতীয় সংসদে বিতর্কিত পঞ্চদশ সংশোধনী বিল পাস হলে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সংগঠন তার তীব্র প্রতিবাদ এবং আপত্তি জানিয়েছিলইউপিডিএফ উক্ত বিলের প্রতিবাদে পার্বত্য চট্টগ্রামে লাল পতাকা উত্তোলন, বিশেষ ব্যাজ ধারণ, স্মরণাতীত কালের বৃহত্তম মানব বন্ধন, তিন জেলায় সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছিল

রমজান ও ঈদের কারণে ইউপিডিএফ-এর কর্মসূচি মাঝখানে সাময়িকভাবে স্থগিত থাকলেও সে কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হয় নিগেল ৭ ডিসেম্বর উপজেলা সদরে বিক্ষোভের মাধ্যমে পঞ্চদশ সংশোধনী বিল বাতিলের কর্মসূচি পুনঃরুজ্জীবিত হয়েছেতারই ধারাবাহিকতায় আগামীকাল ১৬ ডিসেম্বর পার্বত্য চট্টগ্রামে ইউপিডিএফ-এর আহ্বানে রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান বয়কট করা হচ্ছে


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.