মহালছড়িতে জায়গা বেদখলের উদ্দেশ্যে পাহাড়িদের বসতিতে হামলার চেষ্টা চালিয়েছে সেটলাররা

0
3

মহালছড়ি প্রতিনিধি : খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে জায়গা বেদখলের উদ্দেশ্যে পাহাড়িদের বসতিতে হামলার চেষ্টা চালিয়েছে সেটলার বাঙালিরা।

গতকাল রবিবার (২১ অক্টোবর) রাত ১১টার সময় মহালছড়ি উপজেলার কিয়াংঘাট ইউনিয়নের পূর্ব কিয়াংঘাাটের তবলছড়ি নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, পূর্ব কিয়াংঘাটের তবলছড়ি নামক স্থানে বনবিহারী চাকমা(৭০) নামে এক ব্যক্তির রেকর্ডিয় ও দখলীয় প্রায় ২৫ একরের অধিক পরিমাণ জায়গা রয়েছে। তিনি খাগড়াছড়ি সদরে স্থায়ীভাবে বসবাস করার কারণে জায়গাটি আবাদ করতে পারছিলেন না। ফলে তাঁর জায়গার কিছু অংশ ক্রয়ের ভিত্তিতে ৩-৪ মাস আগে থেকে সেখানে ১৭টি পাহাড়ি পরিবার ঘরবাড়ি তুলে বসতি শুরু করেন।  এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল (রবিবার) আরো ৫ ব্যক্তি সেখানে গিয়ে ঘর নির্মাণ করতে আরম্ভ করেন। কিন্তু রাত আনুমানিক ১১টার দিকে পার্শ্ববর্তী নতুন পাড়া থেকে মোঃ সাইফুল (৩৫), পিতা- সাবেদ আলী ও শহীদুল ইসলাম(৩৫)-এর  নেতৃত্বে ৪০/৫০ জন সেটলার সংঘবদ্ধ হয়ে সেখানে গিয়ে নতুন ঘর নির্মাণে বাধা প্রদান ও পাহাড়িদের বসতবাড়িতে হামলার চেষ্টা চালায়। এ সময় সেখানে বসবাসরত পাহাড়িরা ভয়ে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়।

এদিকে, এ খবরটি জানাজানি হলে পাশ্ববর্তী এলাকার পাহাড়িরাও প্রতিরোধ করতে এগিয়ে আসে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং সংঘর্ষের উপক্রম হয়। পরে রাত ১২টার দিকে মহালছড়ি জোন কমাণ্ডারের নেতৃত্বে একদল সেনা সদস্য গিয়ে সেখানে উপস্থিত হন। এ সময় তারা কিয়াংঘাট ইউপি চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎচাকমাকেও সাথে নিয়ে যান।

সেখানে গিয়ে জোন কমাণ্ডার জায়গাটি সম্পর্কে জানতে চাইলে বিশ্বজিৎ চাকমা জায়গাটি রেকির্ডিয় বলে তাঁকে জানান। এতে জোন কমাণ্ডার জায়গার মালিককে মামলা করার পরামর্শ দিয়ে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত সেখানে নতুন করে ঘরবাড়ি তৈরি করা যাবে না বলে নির্দেশ দেন। এ সময় তিনি নতুন তৈরি করা বাড়ির খুঁটিগুলো উপড়ে ফেলারও নির্দেশ প্রদান করেন বলে স্থানীয়রা জানান।
—————
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.