শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮
সংবাদ শিরোনাম

মানিকছড়িতে বৈসাবি র‌্যালি করতে বাধা দিয়েছে সেনাবাহিনী ও পুলিশ

র‌্যালিতে বাধা প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেয়ার দাবি

 

মানিকছড়িতে বৈসাবি র‌্যলি আয়োজন করতে গেল সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাধা প্রদান করে
মানিকছড়িতে বৈসাবি র‌্যলি আয়োজন করতে গেল সেনাবাহিনী ও পুলিশ বাধা প্রদান করে

খাগাড়ছড়ি জেলার মানিকছড়ি উপজেলায় বৈসাবি উদযাপন কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত বৈসাবি র‌্যালিতে সেনাবাহিনী ও পুলিশ প্রশাসন বাধা দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। জানা গেছে আজ ১১ এপ্রিল, ২০১৭ সকাল ১০.৩০টার দিকে মানিকছড়ি উপজেলারা ডিগ্রি কলেজ এলাকার গচ্চাবিল ধর্মঘর থেকে মানিকছড়ি সর্বজনীন বৈসাবি উদযাপন কমিটি, ২০১৭ এর উদ্যোগে বৈসাবি(বৈসু-সাংগ্রাই-বিজু) র‌্যালি শুরু করা হলে মানিকছড়ি সেনা জোন থকে ২০/৩০ জনের একদল সেনাবাহিনী ও পুলিশ কমিটিকে র‌্যালি করতে বাধা দেয়। র‌্যালিতে আসা জনতা তার প্রতিবাদ জানালে পুলিশ ও সেনাবাহিনী র‌্যালিতে আসা সাধারণ জনতার উপর মৃদু লাঠিচার্জও করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে হ্লা প্রু মং(১৯) নামে একজন গুরুতর আহত হয়। তার বাড়ি মানিকছড়ির ফকিরনালায়। পিতার নাম মংতু মারমা।

মানিকছড়িতে আজ ১১ এপ্রিল বৈসাবি র‌্যালির আয়োজন করে বৈসাবি উদযাপন কমিটি
সেনাবাহিনী বৈসাবি র‌্যালি বাধা দেয়ার আগমুহূর্ত

এছাড়া মানিকছড়ির বাটনাতলি-মরাকোল্যা এলাকা থেকে ১২ টি গাড়িতে কয়েকশত জনতা র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করতে আসার সময়ে মানিকছড়ি বাজারে সেনাবাহিনী উক্ত গাড়ি আটকে রাখে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দোজরী এলাকা থেকে কয়েকশত জনতা র‌্যালিতে অংশ নেয়ার উেেদ্দশ্যে হেঁটে আসার সময় তাদেরও আটক করে রেখে র‌্যালিতে আসতে বাধা দেয়া হয়।

এছাড়া অভিযোগ পাওয়া গেছে, সর্বজনীন বৈসাবি উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ম মংশি মারমা ও আপ্রুশি মেম্বারকে সকাল থেকে মানিকছড়ি থানার ওসি থানায় আটক রাখে। মানিকছড়ি থানার ওসি রফিক উদ্দীন তাদের থানায় আটক রেখে র‌্যালি না করতে হুমকি দেয় এবং র‌্যালি আয়োজন করা হলে সেনাবাহিনীর হাতে তাদের গছিয়ে দেয়া হবে বলে শাসায়।
এদিকে মানিকছড়ি সর্বজনীন বৈসাবি উদযাপন কমিটি, ২০১৭ এর সাধারণ সম্পাদক ইমন চাকমা জানিয়েছেন, এ বছর তারা জনগণের অংশগ্রহণে মানিকছড়িতে বৈসাবি র‌্যালির আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। র‌্যালির থীম শ্লোগান ছিল- “সকল বিভেদ বিভ্রান্তি সংকীর্ণ তা ছুঁড়ে ফেলে বৃহত্তর জাতীয় চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হোন”। র‌্যালি সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য তারা কমিটির পক্ষ থেকে মানিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিনতা রানীকে অবগত করেছিলেন এবং তিনি র‌্যালি করার অনুমতিও প্রদান করেছিলেন। র‌্যালি করার অনুমতি প্রদানের পরেও পুলিশ ও সেনাবাহিনীর যৌথ উদ্যোগে র‌্যালি ভন্ডুল করতে বাধা দেয়ার ঘটনাকে তিনি অনভিপ্রেত এবং সরকারের ফাসিস্ট আচরণের বহিপ্রকাশ বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় তিনি র‌্যালি আয়োজনে বাধা দেয়ার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করে র‌্যালিতে যারা বাধা প্রদান করেছে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানান।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.