মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
সংবাদ শিরোনাম

পিসিপি নেতা শহীদ রমেল হত্যার ৪ মাস

মেজর তানভীর ও লে:ক: বাহালুল আলমসহ সকল খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি পিসিপি’র

খাগড়াছড়ি : মেজর তানভীর ও লে: ক: বাহালুল আলমসহ সকল খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি)। আজ আজ শনিবার (১৯ আগস্ট ২০১৭) বিকাল ৪টায় খাগড়াছড়ি জেলা সদরস্থ স্বনির্ভর বাজারে অবস্থিত ইউনাইটেড পিপলস্ ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) কার্যালয়ে (পিসিপি)’র উদ্যোগে আয়োজিত সভা থেকে এ দাবি জানান সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ।

সভায় বক্তারা বলেন, রমেল হত্যার ঘটনা একটি পরিকল্পিত রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড। এই হত্যা ছিল নিষ্ঠুর ও নির্মম। সরকার মুখে গণতন্ত্রের বুলি আওড়ালেও বাস্তবে নাগরিক অধিকার নিয়ত হরণ করছে। গণতান্ত্রিক সভা-সমাবেশের উপর কঠোর জনবিরোধী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। রমেল আমাদের গর্ব। যারা অধিকার আদায়ে আত্মবলিদান দেয়, নিজেকে উৎসর্গ করে তাদের রক্ত বৃথা যায় না।
11
বক্তারা আরো বলেন, সেনাবাহিনী কর্তৃক পিসিপি নেতা রমেল চাকমাকে বিচারবহির্ভূতভাবে হত্যা করা হয়েছে। ১৯৯৬ সালেও সেনাবাহিনী হিল উইমেন্স ফেডারেশন -এর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কল্পনা চাকমাকে অপহরণ করেছিল। অপহরণের সাথে জড়িত চিহ্নিত অপহরণকারী লে: ফেরদৌস ও সালেহ আহম্মদ গং’কে সরকার এখনো গ্রেফতার ও বিচার করেনি। কল্পনার পরিবার এখনো ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত রয়েছে।

বক্তারা রমেল হত্যার চিহ্নিত অপরাধী জোন কমান্ডার বাহালুল আলম ও মেজর তানভীরসহ রমেল হত্যার সাথে জড়িত সেনাবাহিনীর সকল সদস্যদের বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের দাবি ছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অঘোষিত সেনাশাসন প্রত্যাহার ও জাতিগত নিপীড়ন বন্ধের দাবি জানান।
IMG20170819162407
সভা থেকে শাসক গোষ্ঠীর সকল প্রকার দমন-পীড়ন নির্যাতনের বিরুদ্ধে পার্বত্য চট্টগ্রামের ছাত্র-যুব-নারী সমাজকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

সভায় সভাপতিত্ব করেন পিসিপি খাগড়াছড়ি জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন চাকমা। আলোচনা করেন ডিওয়াইএফ-এর কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা, পিসিপি কেন্দ্রীয় কমিটি সভাপতি বিনয়ন চাকমা, এইচডব্লিউএফ খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির সভাপতি দ্বিতীয়া চাকমা প্রমূখ।

উল্লেখ্য, রমেল চাকমা পিসিপি’র নান্যাচর থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। গত ৫ এপ্রিল নান্যাচর বাজার থেকে ফেরার পথে  জোন কমান্ডার বাহালুল আলমের নেতৃত্বে তাকে আটক করে জোনে নিয়ে ব্যাপক শারিরীক নির্যাতন করা হয়। পরে অসুস্থ অবস্থায় সেনাবাহিনী তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ১৯ এপ্রিল তিনি মারা যান।
_______
সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।