শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮
সংবাদ শিরোনাম

রমেল চাকমা হত্যার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম নগরীতে সংহতি সমাবেশ

চট্টগ্রাম: বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদপিসিপি) নান্যচর থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক ও এইচএসসি পরীক্ষার্থী রমেল চাকমাকে সেনাবাহিনী কর্তৃক অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যার প্রতিবাদে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি), গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম (ডিওয়াইএফ) ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন (এইচডব্লউএফ) এর উদ্যোগে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে এক সংহতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

18156840_1161294994016162_6599131496361841695_n

শক্রবার (২৮ এপ্রিল ২০১৭) বিকাল ৪টায় গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের নগর শাখার সহ-সভাপতি শুভ চাক্ এর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল পূর্ব-৩ চট্টগ্রাম অঞ্চল সভাপতি এডভোকেট ভৌলন লাল ভৌমিক, বাসদ চট্টগ্রাম জেলার সমন্বয়ক মহিনউদ্দিন, প্রগতিশীল ডক্টরস ফোরামের সমন্বয়ক ডা. সুশান্ত বড়ুয়া, পাহড়ি ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুনয়ন চাকমা ্ও চবি শাখার সাধারণ সম্পাদক রুপন চাকমা, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের নগর শাখার তথ্য ও প্রচার সম্পাদক কাজী আরমান, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মিনাকী চাকমা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট নগর শাখার সহ-সভাপতি রায়হান উদ্দিন,  বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন চট্টগ্রাম জেলার কোষাধক্ষ্য মো: কাইয়ুম।

সংহতি সমাবেশে এ্যাডভোকেট ভূলন লাল ভৌমিক সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, অনতিবিলম্বে সেনাবাহিনী কাছ থেকে উপদেশ নেয়া বন্ধ করে দিন, এই খুনি মেজর তানভীরসহ জরিতদের গ্রেফতার করুণ।
তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামে সিভিল শাসন নাই, সেখানে চলে সেনা শাসন দাবী করে বলেন অবিলম্বে সেনা শাসন বন্ধ করুন।

18119309_1161230457355949_6456997466774793590_n

ডা. সুসান্ত বড়ুয়া বলেন, যারা অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়ে, যারা দেশ প্রেমের জন্য যুদ্ধ করে তারাই প্রকৃত সৈনিক। আর যে দেশের সেনা জনগণের বুকে গুলি চালায় তারাই প্রকৃত সৈনিক হতে পারেনা। প্রতিষ্ঠানকে কলঙ্ক মুক্ত করার জন্য এসব সেনাদের বিচার করা উচিত।

সমাবেশে উজ্জল চৌধুরী বলেন, পাহাড়ের সংগ্রাম হচ্ছে শ্রেণি সংগ্রামের ইতিহাস। এই ইতিহাসকে শিক্ষা নিয়ে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে।

অপুদাশ গুপ্ত বলেন, রমেলকে হত্যা করার পর থেকে এ আন্দোলন জঙ্গীরূপ ধারণ করেছে। বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষীদের বিচার করা উচিত। পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রাকৃতিক সম্পদ লুটপাট করার জন্য পর্যটনের নাম করে পাহাড়িদের ভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

হাসান মারফ রুমি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারাদেশের যে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড চলছে তারই চরম ফল হচ্ছে রমেল চাকমার হত্যাকাণ্ড। তিনি পার্বত্য চট্টগ্রামে নিয়োজিত সেনাবাহিনীকে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর শাখা বলে মন্তব্য করেন।

বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম এবং হিল উইমেন্স ফেডারেশন । উক্ত মিছিলটি মহানগরের শহীদমিনার প্রাঙ্গন হতে শুরু হয়ে নন্দন কানন, চেরাগী মোড়, প্রেসক্লাব ঘুরে গুরুত্বর্পূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে চেরাগী মোড়ে এসে এক সংহতি সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ।

পরে কালের কন্ঠ, ইত্তেফাক পত্রিকা রমেল চাকমাকে ও গৌতম বুদ্ধকে সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করায় ধমের অনুভূতিকে আঘাত দানের প্রতিবাদে কালের কন্ঠ, জনকন্ঠ ও ইত্তেফাক পত্রিকা চেড়াগী পাহাড় মোড়ে পুড়িয়ে ফেলা হয় এবং ফিরোজ মান্নাকে গ্রেপ্তারের দাবি জানান।
__________
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.