শহীদ অনিমেষ চাকমার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া শেষে মরদেহ বৌদ্ধ ভিক্ষুদের নিকট হস্তান্তর

0
0

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিএইচটিনিউজ.কম
আজ ২৩ মে সোমবার দুপুর দেড়টায় শুরু হয়ে বিকাল চারটায় দিঘীনালার বাবুছড়া আদর্শ প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে শহীদ অনিমেষ চাকমার অন্তোষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছেতুমুল শিলা বৃষ্টি উপেক্ষা করে সহস্রাধিক জনতা এতে সমবেত হন

শহীদের মরদেহ সর্বসাধারণের দর্শনার্থে উন্মুক্ত রাখা হয় এতে সম্মান প্রদর্শন করে পূষ্পস্তবক অর্পণ করেন ইউপিডিএফ কেন্দ্রীয় কমিটির ৪ প্রতিনিধি, সংখ্যালঘু জাতিসমূহের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আয়োজিত জাতীয় কনভেনশন প্রস্তুতি কমিটির প্রতিনিধি মুঈনুদ্দীন আহম্মদ, ফ্যাসিবাদ ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী জাতীয় কমিটির প্রতিনিধি অধ্যক্ষ মোঃ হোসেন খান, ইউপিডিএফ খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিট, ইউপিডিএফ দীঘিনালা উপজেলা ইউনিট, রামগড়-মানিকছড়ি-লক্ষীছড়ি ইউনিট, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম-এর কেন্দ্রীয় কমিটি, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটি, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটিসহ ইউপিডিএফ, ডিওয়াইএফ, পিসিপি ও এইচডব্লিউএফ-এর জেলা, উপজেলা ও বিভিন্ন শাখার প্রতিনিধিবৃন্দ৷

অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া উপলক্ষে আয়োজিত সভায় শহীদ অনিমেষ চাকমার রাজনৈতিক জীবন বৃত্তান্ত এবং ইউপিডিএফ সভাপতির প্রেরিত শোক বার্তা পড়ে শোনানো হয়সভায় সাম্রাজ্যবাদ ও ফ্যাসিবাদ বিরোধী জাতীয় কমিটির নেতা অধ্যক্ষ মো: হোসেন খান তার বক্তব্যে বলেন, ‘অনিমেষ চাকমা জনগণের অধিকার দাবি করায় তাকে সরকার-সন্তু লারমা খুন করেছে৷ কারণ সরকার পাহাড়ি জনগণের দাবি পূরণ করবে নালড়াই করেই জনগণের দাবি আদায় করতে হবে।’

সংখ্যালঘু জাতিসমূহের অধিকার প্রতিষ্ঠার ল্যে জাতীয় কনভেনশন প্রস্তুতি কমিটির প্রতিনিধি মুঈনুদ্দীন আহম্মদদ তার বক্তব্যে বলেন, ‘৫-৬ জুন ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে অনিমেষ চাকমা সিলেট সফরে গিয়েছিলেন মুনিপুরী, খাসিয়া ও চা-জনগোষ্ঠীর প্রচারণার কাজ সম্পন্ন করে নিজ কর্মস্থল সুভলঙে ফেরত যান৷ ঘটনার দিন তার কনভেনশন সফল করার লক্ষ্যে র্মীবাহিনী ও স্থানীয় জনগণের সাথে মতবিনিময় করার কথা ছিল সরকার ও প্রতিক্রিয়াশীলরা আসন্ন জাতীয় কনভেনশনকে ভয় পাচ্ছে, সে কারণে তা বানচালকরার নানা ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার শুরু হয়েছে। অনিমেষ চাকমাকে খুন করা তার অংশ

সভায় ইউপিডিএফ, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম, পিসিপি ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন মহালছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সোনা রতন চাকমা, পানছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, দীঘিনালা উপজেলা চেয়ারম্যান ধর্মবীর চাকমা, দীঘিনালা উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যান সুপ্রিয় চাকমা, বাবুছড়ার ইউপি চেয়ারম্যান পরিতোষ চাকমা, এলাকা মুরুবি্ব নবকমল চাকমা

আলোচনা শেষে শহীদ অনিমেষ চাকমার মরদেহকে ছয় জনের একটি দল ধীর কদমে এগিয়ে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের সম্মুখে স্থাপন করে এ সময় পাশে দাঁড়ানো ছিলেন শহীদ অনিমেষ চাকমার স্ত্রী, মা, আত্মীয় স্বজন এবং পার্টি প্রতিনিধিবৃন্দ পার্টির পক্ষ থেকে নতুন কুমার চাকমা কাস্কেটে আবৃত্ত ইউপিডিএফ-এর দলীয় পতাকা শহীদ অনিমেষ চাকমার স্ত্রী মিন্টি চাকমার নিকট হস্তান্তর করেন৷ এ সময় শহীদের প্রতি সর্বোচ্চ সম্মান প্রদর্শনস্বরূপ রেকর্ড প্লেয়ারে করু সুরে বিউগলের লাস্ট পোস্ট বেজে উঠে সাথে সাথে পার্টি এবং পার্টিভুক্ত সংগঠনসমূহের নেতা-কর্মীরা দাঁড়িয়ে সম্মান জানান৷ এরপর মুষ্টিবদ্ধ হাত উঁচিয়ে পার্টি ও পার্টিভুক্ত সংগঠনের নেতা-কর্মীবৃন্দ শহীদ অনিমেষ চাকমার মরদেহ সামনে রেখে পার্টির লক্ষ্য ও আদর্শ সমুন্নত রেখে আন্দোলন চালিয়ে নেয়ার প্রতিজ্ঞা গ্রহণের মধ্য দিয়ে পার্টির আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হলে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়

শহীদ অনিমেষ চাকমার মরদেহ ভিক্ষুদের ইচ্ছায় এবং পরিবার ও পার্টি নেতৃবৃন্দের সম্মতিক্রমে ধর্মীয় গুরুদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে৷ স্থানীয় সাধনা টিলা বন বিহারে তা নেয়া হয় এবং এখানে তা সংরক্ষিত থাকবে


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.