সাজেকে জনগণের স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত দু’টো কাঠের ব্রিজ ভেঙে দিয়েছে সেনাবাহিনী!

0
0

সিএইচটিনিউজ.কম

সেনাবাহিনী কর্তৃক ভেঙে দেয়া কাঠের ব্রীজ
সেনাবাহিনী কর্তৃক ভেঙে দেয়া কাঠের ব্রীজ

সাজেক(রাঙামাটি): রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের হাজাছড়া ও বাইবাছড়ায় স্থানীয় জনগণের স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মিত দু’টো কাঠের ব্রিজ ভেঙে দিয়েছে সেনাবাহিনী। এলাকার লোকজনের চলাচলের সুবিধার্থে স্থানীয় জনগণ স্বেচ্ছাশ্রমে গত বছর হাজাছড়া ও বাইবা ছড়ার উপর এই ব্রিজগুলো নির্মাণ করে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে আগামীকাল ৩০ ডিসেম্বর মঙ্গলবার বাঘাইহাট টু দীঘিনালা সড়কে সকাল ৬টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ১০ঘন্টার অবরোধ ডেকেছে এলাকাবাসী।

ব্রিজ ভাঙার কাজে কয়েকজন সেনা সদস্য
ব্রিজ ভাঙার কাজে কয়েকজন সেনা সদস্য

জানা যায়, সোমবার(২৯ ডিসেম্বর) ভোর  থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত বাঘাইহাট জোনের একদল সেনা কুড়াল দিয়ে কেটে ব্রীজগুলো ভেঙে দেয়। পরে খবর পেয়ে স্থানীয় এলাকার নারী-পুরুষ এর প্রতিবাদ জানালে সেনারা তাদেরকে বন্দুক তাক করে হুমকি প্রদর্শন করে।

ব্রিজ ভেঙে দেয়ার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিকভাবে এলাকার জনগণ বিক্ষোভ মিছিল করেছে।  মিছিলটি কিয়াঙঘাট এলাকা থেকে  শুরু হয়ে বাঘাইহাটের আর.পি চেকপোষ্টের সামনে গিয়ে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এতে সুমিকা চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন মেয়েলতা চাকমা, আলোরাণী চাকমা ও শান্তি দেবী চাকমা। সমাবেশ শেষে মিছিলটি আবারো কিয়াঙঘাটে এসে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন এলাকার মুরুব্বী ইন্দ্রজয় চাকমা। তিনি মঙ্গলবার(৩০ ডিসেম্বর) সকাল ৬টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বাঘাইহাট টু দীঘিনালা সড়কে অবরোধ ঘোষণা করেন।

এলাকাবাসীর তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ
এলাকাবাসীর তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ

এদিকে, সাজেক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অতুলাল চাকমার নেতৃত্বে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সকালে এ বিষয়ে কথা বলতে বাঘাইহাট জোনে গেলে জোন কমান্ডার হায়দার তাদেরকে জানান ‘ফরেস্ট বিভাগের লোকজন ভুল তথ্য দেয়ায় এই অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে’। ইউএনডিপির প্রজেক্টের টাকায় ব্রিজগুলো নির্মাণ করার তথ্য পেয়ে ব্রিজগুলো ভেঙে দেয়া হয়েছে বলেও জোন কমান্ডার জনপ্রতিনিধিদের জানিয়েছেন। এসময় তিনি এ ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে ব্রিজগুলো মেরামত করে দেয়ারও নাকি আশ্বাস দিয়েছেন।
—————

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.