আন্তর্জাতিক নারী দিবসে দীঘিনালায় হিল উইমেন্স ফেডারেশনের আলোচনা সভা

0
86

দীঘিনালা প্রতিনিধি।। ‘পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারাদেশে নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন’ এই শ্লোগানে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে দীঘিনালায় হিল উইমেন্স ফেডারেশন’র দীঘিনালা থানা কমিটির উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ ৮ মার্চ ২০২১, সোমবার ১০টায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন পহেলি চাকমা। সীমা চাকমার সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন ইউপিডিএফ’র দীঘিনালা উপজেলা সমন্বয়ক মিল্টন চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের দীঘিনালা উপজেলা শাখার সভাপতি রিটেন চাকমা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের জেলা কমিটি নেতা মিঠুন চাকমা, দীঘিনালা থানা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক গৌতম চাকমা ও বাবুছড়া ইউনিয়নের ৪, ৫, ৬ নং ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার প্রতিভা চাকমা।

সভায় বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রীসহ এলাকার নারীরা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় ইউপিডিএফ’র দীঘিনালা উপজেলা সমন্বয়ক মিল্টন চাকমা বলেন, নারী শ্রমিকদের আত্মত্যাগই আজকের আন্তর্জাতিক নারী দিবস। একইভাবে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের প্রতিষ্ঠাও পার্বত্য চট্টগ্রামের রাজনৈতিক ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ। পূর্ণস্বায়ত্তশাসনের দাবি উত্থাপন, লোগাং লংমার্চ সহ বিভিন্ন আন্দোলনে নারী সমাজের অংশগ্রহন ছিল প্রেরণাদায়ক। কল্পনা চাকমা নারী সমাজের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র।

দেশে নারী নির্যাতন অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে খাগড়াছড়ি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক ছাত্রীকে একজন শিক্ষক ধর্ষণের চেষ্টা করে। এর প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করলে প্রশাসন সেই শিক্ষককে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়। শিক্ষার্থীরা দেখিয়ে দিয়েছে কিভাবে অধিকার আদায় করতে হয়। আন্দোলন ছাড়া কোন কিছুই সহজে অর্জন করা যায় না। আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ইতিহাসও সেটাই শিক্ষা দেয়। ভবিষ্যত আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার এখনই সময়। তিনি নিজের অধিকার সম্পর্ক সচেতন হতে হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সাথে আন্দোলনে যুক্ত হওয়া জন্য উপস্থিত ছাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানান।

রিটেন চাকমা বলেন, যুব সমাজ, ছাত্র সমাজ ও নারী সমাজ এক হলে কোন অপশক্তি নেই জুম্ম জাতিকে দমিয়ে রাখা। আজকের এই সমাবেশ প্রমান করে যে কোন পরিস্থিতিতে নারীরা এগিয়ে আসবে।

গৌতম চাকমা তার বক্তব্যে বলেন, সমাজে পুরুষের পাশাপাশি নারীদের ভূমিকাও কোন অংশে কম নয়। অনেকে ক্ষেত্রে নারীদের ভূমিকাই বেশি। নারীর অংশগ্রহন ছাড়া কোন জাতি এগিয়ে যেতে পারে না। আমাদের পার্বত্য চট্টগ্রামের ক্ষেত্রে এটা আরো বেশী প্রযোজ্য।

মিঠুন চাকমা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে পিসিপির সাথে হিল উইমেন্স ফেডারেশন কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আন্দোলন করে যাচ্ছে। যে কোন পরিস্থিতিতে হিল উইমেন্স ফেডারেশন তার লড়াকু ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতিভা চাকমা বলেন, সমাজের অর্ধেক অংশ হচ্ছে নারী। আমাদের মত অনগ্রসর জাতির জন্য আন্তর্জাতিক নারী দিবস অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কর্মীরা পাহাড়ি নারী সমাজকে জাগিয়ে তুলবে এবং আন্দোলনে ভূমিকা পালন করবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

 


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.