কক্সবাজারে রাখাইন গ্রামে ভূমিদস্যুদের হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম

0
0

নিজস্ব প্রতিবেদক: গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি অংগ্য মারমা ও সাধারণ সম্পাদক জিকো ত্রিপুরা আজ ৩ এপ্রিল ২০১৭ সোমবার সংবাদ মাধ্যমে প্রদত্ত এক যুক্ত বিবৃতিতে কক্সবাজার জেলার সদর উপজেলার ১নং ওয়ার্ডের চৌফুলন্দি রাখাইন গ্রামে রাখাইন জাতিসত্তার জনগণের ওপর ভূমিদস্যুদের হামলা ও বাড়িঘর ভাঙচুরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

রবিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে আব্দুর শুক্কুর এর ছেলে শাহা আলম ও আলমের নেতৃত্বে ৬০ জনের অধিক ভূমিদস্যু এই হামলা চালায় বলে নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে অভিযোগ করেন।

bibritiবিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ সরকারে সমালোচনা করে বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার কথায় সংখ্যালঘু জনগণের অধিকার রক্ষার কথা বললেও তাদের আমলেই পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারা দেশে হিন্দু, সান্তাল ও অন্যান্য সংখ্যালঘু জাতিসত্তার উপর নির্যাতন ও ভূমি বেদখলের ঘটনা অব্যাহতভাবে ঘটে চলেছে। এছাড়া ২০১২ সালে কক্সবাজারের রামুতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জামাতের নেতাকর্মীরা একজোট হয়ে ঐতিহ্যবাহী বেশ কয়েকটি বিহারে হামলা চালিয়ে হাজার হাজার বছরের বৌদ্ধ সংস্কৃতি ধ্বংস করেছিল।

বিবৃতিতে তারা বলেন, হামলাকারীরা মাঞা রাখাইন (৬২), মাখইংচিং রাখাইন (৭৮) ও মাঅং রাখাইন (৬৮) ঘর ভেঙ্গে তছনছ করে দেয়, তবে পুলিশের হস্তক্ষেপের কারণে তারা পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। উল্লেখ্য ৩০ বছর আগে রাখাইনদের ৩০০ বছরের পুরোনো একটি পুকুর আব্দুর শুক্কুর ও তার গংরা বেদখল করে নেয় বলে এলাকার জনগণের সূত্রে জানা গেছে।

এদেশে জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের সব সময় হামলার আতঙ্কে বসবাস করতে হয় অভিযোগ করে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, এই উগ্র জাতীয়তাবাদী ও উগ্র সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী প্রশাসনের সহযোগিতায় কখনো সংখ্যালঘু হিন্দুদের উপর, গোবিন্দগঞ্জে সান্তালদের উপর আবার কখনো পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি বেদখলের জন্য পাহাড়ি জনগণের ওপর সাম্প্রদায়িক হামলা পরিচালনা করে আসছে। এসব ঘটনায় সরকার দোষীদের বিচার না করে বরং তাদের রক্ষার জন্য বিভিন্ন তৎপরতা চালিয়ে থাকে।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে কক্সবাজার জেলা সদরে চৌফুলন্দি রাখাইন গ্রামে হামলার ঘটনার সাথে জড়িত শাহা আলম, আলমসহ তাদের সহযোগীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সংখ্যালঘু রাখাইন জাতিসত্তার জনগণের ভূমি রক্ষা ও তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানান।
——————

সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.