খাগড়াছড়িতে জুয়ার আসর বন্ধে উদ্যোগ নেই প্রশাসনের !

0
3

বিশেষ প্রতিবেদক, সিএইচটিনিউজ.কম
Juoaখাগড়াছড়ি : খাগড়াছড়িতে ব্যাঙের ছাতার মত বিভিন্ন জায়গায় গড়ে উঠেছে জুয়ার আসর। সামাজিক অন্যতম ব্যাধি হওয়া সত্ত্বেও স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা নীরব থাকায় জুয়ার কারনে বাড়ছে পারিবারিক কলহ ও যুব সমাজের অবক্ষয়। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে মাসিক মাসোয়ারা দিয়ে এসব জুয়ার আসর চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর এসব আসর সামাজিক ক্লাব থেকে আবাসিক এলাকাগুলোও রীতিমত দখল করেছে নিয়েছে। যারা সামাজিক বিচার-আচারের প্রতিনিধি তারাও রীতিমত এসব জুয়ার আসরে সময় কাটাতে দেখা যাচ্ছে। প্রায় প্রতিটি নির্বাচনেই প্রার্থীরা সুন্দর সমাজ বির্নিমানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসলেও বাস্তবে এর কোন প্রভাব পরিলক্ষিত হয়না। ফলে জুয়াড়ীরা পার পেয়ে দিন দিন আসক্ত হচ্ছে এ নেশায় আর প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়ছে স্থানীয় প্রশাসনের কার্যক্রম।

অনুসন্ধানে জানা যায়, খাগড়াছড়ি জেলা সদরের একাধিক স্থানে অনবরত চলছে জুয়ার বোর্ড। এ বোর্ড থেকে কেউ সর্বস্ব হারিয়ে নিরাশ, আবার কেউবা কিছু পেয়ে হাস্যজ্জ্বল হয়ে বের হওয়ারও চিত্র দেখা যাচ্ছে। জেলা সদরের শান্তিনগর রোডস্থ বাসটার্মিনাল এলাকা সংলগ্ন জনৈক কালাম মিস্ত্রির স্ত্রী’র নামীয় ভূমিতে ব্যাচেলর ভাড়া দিয়ে ৩টি টেবিলে চলে অনবরত জুয়ার আসর। এ আসরটি নিয়ন্ত্রণ করছে জনৈক আনিস নামে এক ব্যক্তি। এ জুয়ার আসরটি চলে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত। এ আসরকে কেন্দ্র করে খোলা হয়েছে একটি ভাতের হোটেলও। দিনরাত অনবরত এসব চিত্র দাগ কাটছে যুব সমাজের মনে। প্রতিনিয়তই বেড়ে চলেছে নতুন নতুন জুয়ারীর সংখ্যা। আবাসিক এলাকায় এ ধরনের জুয়ার আসর চলমান থাকায় প্রতিনিয়ত স্থানীয় যুবকের সাথে যোগ দিচ্ছে অন্য এলাকার যুবকরাও। গড়ে উঠেছে বিভিন্ন জুয়া ক্লাব।

স্থানীয়রা বলছে এসব ক্লাবগুলো লাইসেন্স করা। আর এই লাইসেন্স করা ক্লাবগুলোতে জুয়া খেলা বৈধ  বলে অনেকের ধারণা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা সদরের একাধিক স্থানে জুয়ার আসর চলে। শান্তি নগরে আনিসের নেতৃত্বে, মহাজন পাড়া সাবেক কাউন্সিলর কান্তামনি চাকমার নেতৃত্বে বসে জুয়ার আসর। যা পাজেপ সদস্য বীর কিশোর চাকমা’র বাড়ীর সামনে’র একটি ক্লাবে। দিনের বেলায় ঢিলেঢালাভাবে এ জুয়ার আসর চললেও রাতের বেলায় দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। জুয়ারীরা গভীর রাতেও এ আসর থেকে বের হয়ে বাড়ীর ফেরার দৃশ্য চোখে পড়ে। এছাড়াও পানখাইয়া পাড়া নাচনেওয়ালীর নেতৃত্বে জুয়ার আসর, শহীদ কাদের সড়কস্থ রফিক স’মিল সন্নিকটে জুয়ার আসর, গঞ্জপাড়া, কলেজ গেইট, শালবন, সবুজবাগ সহ তেঁতুল তলা ও খাগড়াছড়ি অবসর ভবন সংলগ্ন ভাঙ্গারীর দোকনে চলে জুয়া খেলার ধারাবাহিক চিত্র। এসব জুয়ার আসরে খেলোয়ার পরিবর্তন হলেও জুয়ার বোর্ডটিতে থাকে উপচে পড়া  ভীড়। আবাসিক এলাকা ছাড়াও জেলা সদরের বিভিন্ন ক্লাবে জুয়া খেলা চলমান রয়েছে।

প্রকাশ্যে এসব জুয়ার আসর চললেও প্রশাসন একেবারেই নির্বিকার। যেন দেখেও দেখে না। এসব বন্ধে প্রশাসনের কোন উদ্যোগ-ই চোখে পড়ে না। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই জুয়ারীরা প্রকাশ্যে এভাবে জুয়াক্লাব খুলে জুয়ার আসর বসিয়ে থাকে। তবে পুলিশ বলছে ভিন্ন কথা। এ ব্যাপারে খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, জুয়ার আসর বন্ধে আমরা বদ্ধ পরিকর। অভিযোগ পাওয়া মাত্রই আমরা এ্যাকশনে যাবো। কিন্তু পুলিশের এ ভাষ্য বাস্তবতার সাথে কোন মিল নেই।

অবিলম্বে এসব জুয়ার আসর চিহ্নিত করে বন্ধ করা না গেলে সামাজিক অবক্ষয় রোধ করা যেমনি কঠিন হয়ে পড়বে তেমনি পারিবারিক কলহ বিবাদ সমাজকে কলুষিত করবে। এর ফলে হুমকি’র মুখে পড়বে সুন্দর সমাজের ভবিষ্যত। তাই সামাজিক শৃঙ্খলা রক্ষায় এসব জুয়ার আসর বন্ধে অনতিবিলম্বে প্রশাসনিক উদ্যোগ গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন এলাকার সচেতন নাগরিকরা।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.