খাগড়াছড়িতে পিসিপি ও যুব ফোরামের তিন নেতাসহ ৬ জনকে হত্যার প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বিক্ষোভ

0
4

চট্টগ্রাম: খাগড়াছড়ি সদরের স্বনির্ভরে জেএসএস সংস্কার-নব্য মুখোশ সন্ত্রাসী কর্তৃক পিসিপি ও যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় নেতা তপন, এলটন ও পলাশ চাকমা সহ ৬ জনকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম ও বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ চট্টগ্রাম মহানগর ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

আজ শনিবার (১৮ আগস্ট) বিকাল ৩টায় অনুষ্ঠিত মিছিলটি চট্টগ্রাম ডিসি হিল মোড় থেকে শুরু হয়ে নন্দনকানন ঘুরে প্রেস ক্লাব হয়ে চেরাগী পাহাড় মোড়ে এসে এক বিক্ষোভ সমাবেশে মিলিত হয়।

পিসিপি নেতা অর্পন চাকমার সঞ্চালনায় গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের মহানগর শাখার সভাপতি থুইক্যচিং মারমার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন পিসিপি চবি শাখার সদস্য রোনাল চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সদস্য রেশমী মারমা।  এছাড়া সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল-চট্টগ্রাম পূর্ব ৩ এর সভাপতি এড. ভূলন লাল ভৌমিক।

বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, আজ সকাল ৮টার দিকে খাগড়াছড়ির স্বনির্ভর বাজারে প্রশাসনের নাকের ডগায় সংস্কারবাদী জেএসএস ও নব্য মুখোশ বাহিনীর সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি স্বশস্ত্র হামলা চালিয়ে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) খাগড়াছড়ি জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন চাকমা, সহ-সম্পাদক এলটন চাকমা ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় নেতা পলাশ চাকমাসহ ৬ জনকে হত্যা করেছে। শুধু তাই নয় একই কায়দায় সন্ত্রাসীরা পেরাছড়ায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসীর মিছিলের ওপরও সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে। এতে গুরুতর আহত হয়ে ৭০ বছরের এক বৃদ্ধ মারা গেছেন।

বক্তারা প্রশ্ন রেখে বলেন, ঘটনাস্থলের পঞ্চাশ গজ উত্তরে বিজিবি খাগড়াছড়ি জেলা সদর হেডকোয়ার্টার, ২০ গজ পূর্বে পুলিশ বক্স এবং স্বনির্ভর বাজার সার্বক্ষণিক সিসি ক্যামেরা ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন দ্বারা নজরদারি—এরকম নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেদ করে সন্ত্রাসীরা কিভাবে হামলা করতে পারে?

তারা আরো বলেন, প্রশাসনের প্রত্যক্ষ মদদ ও সহযোগিতা ছাড়া সন্ত্রাসীরা কোনভাবে এরূপ জঘন্য কাজ করার সাহস পেত না। সন্ত্রাসীরা আধা ঘন্টা হামলা চালিয়ে স্বশস্ত্র অবস্থায় বিজিবি জেলা হেডকোয়ার্টার এর সামনে দিয়ে উল্লাস করতে করতে চলে যায়। অথচ পুলিশ ও বিজিবি সন্ত্রাসীদের দেখেও না দেখার ভাণ করে থাকে।

বক্তারা বলেন, সরকার সংস্কার-নব্য মুখোশ সন্ত্রাসীদের দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে অশান্তি জিইয়ে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এরই অংশ হিসেবে অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে আজকের হামলা চালানো হয়েছে।

তারা অবিলম্বে খাগড়াছড়িতে সন্ত্রাসী হামলা ও হত্যার সাথে জড়িত সংস্কার-মুখোশ সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।
——————-
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.