খাগড়াছড়িতে ভোটকেন্দ্র দখল করে ব্যাপক ভোট ডাকাতি করেছে আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীরা

0
0

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ।। খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন উপজেলায় সেনা-বিজিবি-পুলিশের সহযোগিতায় ভোটকেন্দ্র দখল করে ব্যাপক ভোট ডাকাতি করেছে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা।

আজ ৩০ ডিসেম্বর সকাল ৮টা থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পরপরই আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা ভোট কেন্দ্র দখল নিতে শুরু করে। এসময় ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বরত সেনাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ তাদের পূর্ণ সহযোগিতা প্রদান করে।

আমাদের দীঘিনালা প্রতিনিধি জানান, ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার আগের রাতেই বিজিবি-পুলিশের সহযোগিতায় আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা কয়েকটি ভোট কেন্দ্রে ঢুকে দায়িত্বরত প্রিসাইডিং ও পোলিং অফিসারদের জিম্মি করে ব্যালট পেপারে সিলমারে ব্যালট বাক্সে ভরে দেয়। এরপর সকালে ভোট গ্রহণ শুরু হলে সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় মেরুং ইউনিয়নের সবকটি কেন্দ্র এবং কবাখালী ইউনিয়নের হাসিনসনপুর উচ্চ বিদ্যালয়, শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়, বড়াদাম উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রসহ কয়েকটি কেন্দ্র সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় আওয়ামী লীগ ও সংস্কারবাদী জেএসএস সন্ত্রাসীরা দখল করে ইচ্ছেমত জালভোট প্রদান করে। এ সময় প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয় এবং ভোট দিতে আসা ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে বাধা দেওয়া হয়। ফলে তারা বাড়ি ফিরে যেতে বাধ্য হন।

মাটিরাংগা প্রতিনিধি জানান, আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা প্রশাসনের সহযোগিতায় উপজেলার প্রায় সবকটি ভোট কেন্দ্র দখল করে জালভোট প্রদান করেছে। এ সময় সন্ত্রাসীরা স্বতন্ত্রসহ প্রতিদ্বন্দ্বি অপর প্রার্থীদের এজেন্টদের ভোট কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়ে ইচ্ছেমত নৌকায় সিল মেরেছে। রামগড় উপজেলায়ও একইভাবে ভোটকেন্দ্র দখল করে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা ব্যাপক জালভোট প্রদান করেছে।

পানছড়ি বাজার এলাকার কেন্দ্রসহ বেশ কয়েকটি কেন্দ্র আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসীরা দখল করে ইচ্ছেমত জালভোট প্রদান করেছে।

অপরদিকে ভোটগ্রহণ শুরুর হওয়ার পরপরই খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার কমলছড়ি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও কমলছড়ি হেডম্যান পাড়া সরকারি প্রা: বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সংস্কারবাদী সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মুখে স্বতন্ত্র প্রার্থী নুতন কুমার চাকমার এজেন্টদের বের করে দিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এছাড়াও খাগড়াছড়ি সদর, মহালছড়ি, মানিকছড়ি ও গুইমারা উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রেও সেনা-প্রশাসনের সহযোগিতায় আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা ভোট ডাকাতি করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে, বিভিন্ন স্থানে কেন্দ্র দখল ও ভোট ডাকাতির বিষয়ে রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলামকে জানানো হলে তিনি নিজের ‍‍“অসহায়ত্বের” কথা জানান। তবে তিনি ম্যাজিষ্ট্রেট পাঠানোর কথা বললেও কোন কাজ হয়নি।
——————
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.