গুইমারায় ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টাকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা, শিক্ষক পলাতক

0
120

গুইমারা প্রতিনিধি ।। খাগড়াছড়ির গুইমারায় ৯ম শ্রেণীর পাহাড়ি ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টাকারী গুইমারা সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ফয়েজ আহমেদ এর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতাকাল মঙ্গলবার (২০ জুলাই ২০২১) ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে এই মামলাটি দায়ের করেন। অভিযুক্ত শিক্ষক পলাতক রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ধর্ষণ চেষ্টাকারী শিক্ষক ফয়েজের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার রাজানগর এলাকায়। তার পিতার নাম ফরিদ আহমেদ। তিনি বর্তমানে গুইমারা মাষ্টারপাড়ায় নন্দন বনিকের বাড়িতে ভাড়া থাকেন।

মামলার এজাহারে ভুক্তভোগী ছাত্রী অভিযোগ করেন, গত ১৯ জুলাই দুপুর আনুমানিক ১:২০টার দিকে শিক্ষক ফয়েজের বাসায় গান প্র্যাকটিস করতে গেলে শিক্ষক তাকে টিভির রুমে বসে টিভি দেখতে বলেন। এ সময় ফয়েজ ও তার স্ত্রী দুপুরের খানা খাচ্ছিলেন। খাওয়া শেষে ফয়েজের স্ত্রী রান্না ঘরে যায় এবং ফয়েজ টিভি রুমে ঢুকে প্রথমে তার (ছাত্রীর) শরীরের স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দেন এবং পরে জড়িয়ে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় তিনি (ছাত্রী) ফয়েজকে ধাক্কা দিয়ে নিজেকে সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন ও চিৎকার দেন। তখন ফয়েজের স্ত্রী কি হয়েছে জানতে চাইলে ফয়েজ কিছু হয়নি বলে তার স্ত্রীকে জানায়। এরপর তিনি (ছাত্রী) সেখান থেকে বেরিয়ে গিয়ে পার্শবর্তী লোকজনকে ঘটনাটি জানান এবং বাড়িতে গিয়ে বাবা-মাকেও ঘটনার বিস্তারিত অবগত করেন।

উক্ত ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার ভুক্তভোগী ছাত্রী বাদী হয়ে শিক্ষক ফয়েজের বিরুদ্ধে গুইমারা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(৪) (খ) ধারায় মামলা দায়ের করেছেন। যার মামলা নং-০৩/২৭

এ সময় বিএমএসসির নেতাকর্মী ও ভুক্তভোগীর সহপাঠিসহ প্রায় ৫০-৬০ জন থানায় উপস্থিত ছিলেন। তারা অবিলম্বে অভিযুক্ত শিক্ষককে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনানুযায়ী শাস্তি প্রদানের দাবি জানিয়েছেন।

এদিকে মামলা দায়েরের পর থেকে অভিযুক্ত শিক্ষক ফয়েজ আহমেদ পলাতক রয়েছেন বলে জানা গেছে।


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.