গুইমারা থানার ওসি শাহদাৎ হোসেন টিটুর গ্রেফতার বাণিজ্য

0
3

গুইমারা : খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা থানার ওসি শাহদাৎ হোসেন টিটু গ্রেফতার বাণিজ্যের ফাঁদে ফেলে উপজেলার নিরীহ সাধারণ জনগণের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা কামিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, গত ৬ ডিসেম্বর উপজেলার ফজর টিলার (সেটলারদের কর্তৃক দেয়া নাম) কলেজ রোডের পার্শ্বস্থ নালা থেকে অজ্ঞাত পরিচয় এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী দেখিয়ে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এরপর থেকে ওসি শাহদাৎ হোসেন টিটুর গ্রেফতার বাণিজ্য শুরু হয়।

ভূক্তভোগীদের কয়েকজন ঘনিষ্ঠ আত্মীয় সিএইচটি নিউজ ডটকমকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, গত ৯ ডিসেম্বর অশ্বিনি কুমার কার্বারী (৫৫), পিতা- ইন্দ্র চাকমা, গ্রাম- ছোট পিলাক,  গুইমারা বাজারে আসলে থানায় ধরে নিয়ে যান ওসি শাহদাৎ হোসেন টিটু। থানায় নিয়ে হত্যা মামলায় জড়িয়ে কোর্টে চালান দেয়ার ভয় দেখিয়ে মানসিক নির্যাতন চালানো হয়। তাঁর কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা দাবি করা হয়। পরে স্থানীয় সরকার দলীয় নেত্রী ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ঝর্ণা ত্রিপুরার মাধ্যমে টাকাগুলো গ্রহণ করে তাকে সে রাতেই ছেড়ে দেয়া হয়।

দয়া রঞ্জন চাকমা (৪২), পিতা- বুজ্জে চাকমা, গ্রাম- ছোট পিলাক গুইমারা বাজার আসলে তাকেও একই কায়দায় গত ১৮ ডিসেম্বর ধরে নিয়ে থানা হাজতে রাখা হয়। হত্যা মামলার আসামী করে চালান দেয়ার ভয় দেখান ওসি শাহদাৎ। দাবি করা হয় ৩০ হাজার টাকা। টাকা না দিলে নির্যাতনের হুমকি দেন ওসি। এরপর আবারো ‍উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ঝর্ণা ত্রিপুরা মধ্যস্থতার দায়িত্ব নেন। দরিদ্র দয়া রঞ্জনের টাকা না দিয়ে কোন উপায় ছিল না। হত্যা মামলার আসামী হওয়ার ভয়ে ধার দেনা করে ঝর্ণার মাধ্যমে ওসি শাহদাৎকে ৩০ হাজার টাকা দেয়ার মাধ্যমে মুক্তি পান তিনি।

গত ২২ ডিসেম্বর গুইমারা বাজার থেকে আবারো ধরে  নিয়ে যান ছোট পিলাক গ্রামের বুজ্জে চাকমার ছেলে চিন্তা চরণ চাকমা (৩৮)-কে।  থানায় নিয়ে তাকেও হত্যা মামলার আসামী করার ভয় দেখান ওসি শাহদাৎ। তাকেও টাকা ছাড়া ছেড়ে দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন। দাবি করেন ৩০ হাজার টাকা। এরপর ছোট পিলাকের বাসিন্দা ও মুরুব্বী সংগ্রাম চাকমার মাধ্যমে টাকাগুলো বুঝে নেয়ার পর চিন্তা রঞ্জন চাকমাকে থানা থেকে ছেড়ে দেন গুইমারা থানার ওসি শাহদাৎ হোসেন টিটু।

ওসি শাহাদাৎ হোসেনের এমন কাণ্ডে এলাকার জনমনে আতঙ্ক ও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। কিন্তু গ্রেফতারের ভয়ে কেউ মুখ খুলে প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছেন না। ওসির এমন গ্রেফতার বাণিজ্যের হাত থেকে রেহাই পেতে চায় এলাকাবাসী।

______
সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.