চট্টগ্রামে ইউপিডিএফের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মুক্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

0
176

চট্টগ্রাম।। ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট ( ইউপিডিএফ)-এর ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার (২৫ ডিসেম্বর ২০২০) চট্টগ্রামে “পার্বত্য চট্টগ্রামে বর্তমান পরিস্থিতি ও করণীয়” শীর্ষক এক মুক্ত আলোচনা সভা আনুষ্ঠিত হয়েছে।

নগরীর সুপ্রভাত স্টুডিও হলে গতকাল বিকাল ৩টায় গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম চট্টগ্রাম মহানগর কমিটি এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

আলোচনা সভা শুরুতে শহীদদের উদ্দেশ্যে দাঁড়িয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

সভায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কেন্দ্রীয় বার্তা পাঠ করেন পিসিপি’র চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা দপ্তর সম্পাদক সোহেল চাকমা।

পিসিপি’র চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক অমিত চাকমা’র সঞ্চালনায়, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের মহানগর শাখা সহ-সভাপতি উচিংশৈ চাক(শুভ)-এর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পিসিপি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার তথ্য ও প্রচার সম্পাদক রোনাল চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সভাপতি রেশমি মারমা, প্রগতিশীল চিকিৎসক ও বাসদ(পাঠচক্র ফোরাম) নেতা ডাঃ সুশান্ত বড়ুয়া, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল(পূর্ব-৩)এর চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি এ্যাডভোকেট ভূলন ভৌমিক ও ইউনাইটেড ওয়ার্কাস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট- এর চট্টগ্রাম মহানগর কমিটির সভাপতি বিজয় চাকমা প্রমুখ।

সভায় ডাঃ সুশান্ত বড়ুয়া বলেন, বর্তমানে শাসক শ্রেণী যতই মুখে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার কথা বলুক, বাস্তবে তারা গণতন্ত্র ও স্বাধীনতার কথা বিশ্বাস করে না।

তিনি আরও বলেন, যে দলই সরকার ক্ষমতায় আসুক তারা ফিলিস্তিনের জনগণের পক্ষে বিবৃতি দিচ্ছে আর অপরদিকে পার্বত্য চট্টগ্রামের ইসরাইলী কায়দায় জোরপূর্বক সেটেলার বাঙালিদের বসতিস্থাপন করছে। এর বিরুদ্ধে সকলকে রুখে দাড়াতে হবে।

জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল (পূর্ব-৩)-এর সভাপতি এডভোকেট ভূলন ভৌমিক বলেন, এক সময় সেনাবাহিনী ছিল পেশাদারী বাহিনী। তাদের দায়িত্ব ছিল বহির্দেশ আক্রমণ থেকে দেশকে রক্ষা করা এবং স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা।
আর বর্তমানে সেনাবাহিনী ব্যবসায়ী বাহিনী হিসেবে পরিনত হয়েছে। তারা কনস্ট্রাকশন, হাইওয়ে, পর্যটনহ সকল ধরনের ব্যবসায়ী কাজে সম্পৃক্ত।বর্তমানে সেনাবাহিনী পাহাড়ে প্রত্যক্ষ এবং সমতলে পরোক্ষভাবে দেশ চালাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, সরকার রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পূনর্বাসনের ব্যবস্হা করতে পারলে সেটেলার বাঙালিদের পার্বত্য চট্টগ্রামের বাইরে সমতলে সম্মানজনক পূনর্বাসন কেন পারবে না। তিনি বলেন, সেটেলারদের সমতলে সম্মানজনকভাবে পূনর্বাসন করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.