চবি ক্যাম্পাসে নির্বিচারে গাছ কাটার প্রতিবাদ প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহের

0
113

চবি প্রতিনিধি ।। সৌন্দর্য্য বৃদ্ধির নামে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ক্যাম্পাসে নির্বিচারে গাছ কাটার প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহ।

আজ সোমবার (২৬ এপ্রিল ২০২১) সংবাদ মাধ্যমে প্রেরিত এক যৌথ বিবৃতিতে সংগঠনসমূহ এই প্রতিবাদ জানায়।

গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল’র চবি শাখার সংগঠক রাজেশ্বর দাশ গুপ্ত, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন’র চবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক আশরাফী নিতু, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ’র চবি শাখার সভাপতি আশুতোষ চাকমা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট’র চবি কাউন্সিল প্রস্তুতি কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইশরাত হক জেরিন, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ’র চবি শাখার আহ্বায়ক মিটন চাকমা যৌথ বিবৃতিতে বলেন, বিগত বেশ কয়েক বছর যাবৎ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও এর আশপাশের বন-পাহাড় উজাড় করে নির্বিচারে গাছ কাটা হচ্ছে। কাটার পর এসব গাছ রাখা ও পরিবহণের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে। শিক্ষার্থীরাও দীর্ঘদিন ধরে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলেও গাছ কাটা বন্ধে প্রশাসন কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

এতে তারা আরো বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্টের প্রেক্ষিতে বিগত ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ তারিখে শিক্ষার্থীরা সৌন্দর্য্য বর্ধন, রাস্তা সম্প্রসারণ ইত্যাদি অজুহাতে ক্যাম্পাস এলাকার কোনো স্থানে প্রশাসন বা অন্য যে কারো উদ্যোগে কোনো গাছ না কাটা এবং গাছকাটা প্রতিরোধ ও পরিবেশ রক্ষায় অকার্যকর কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটি করা এবং তা কার্যকর রাখা সহ ৭ দফা দাবিতে আন্দোলন সংগঠিত করে। আন্দোলনের প্রেক্ষিতে প্রশাসন দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসও দেয়। কিন্তু এক বছরের বেশী সময় পার হয়ে গেলেও সে আশ্বাসের বিন্দুমাত্র প্রতিফলন দেখা যায় নি। উল্টো গাছ কেটে নেমপ্লেট, কালভার্ট ও রাস্তা রক্ষার মাধ্যমে সৌন্দর্য্য বৃদ্ধির হাস্যকর অজুহাতে জন্য গত ৬ এপ্রিল ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের ডিনের আবেদনের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের প্রত্যক্ষ ব্যবস্থাপনায় গাছ কাটার নজিরবিহীন মহোৎসব শুরু হয়েছে।

যৌথ বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, সাধারণ মানুষের ট্যাক্সের টাকায় তৈরি বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল সম্পদ শিক্ষার্থীদেরই সম্পদ। উল্লেখ্য ঘটনা দিয়ে প্রমাণিত হলো, বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদ বিক্রি করে নিজেদের আখের গোছানোয় পূর্ববর্তী প্রশাসনের সাথে বর্তমান প্রশাসনের কোনো তফাৎ নেই। দীর্ঘদিন ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাধে গাছকাটার যে উৎসব শুরু হয়েছে, তা আমরা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছি এবং অবিলম্বে প্রশাসন কর্তৃক বৃক্ষ নিধন বন্ধ করা এবং অবৈধভাবে বৃক্ষ নিধনের সাথে জড়িত সকলের বিচার এবং উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানাচ্ছি।


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.