দীঘিনালায় নান্যাচর গণহত্যার ২৭তম বার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা

0
114

দীঘিনালা প্রতিনিধি ।। ‘সহস্র শোক জ্বেলে দিক প্রতিবাদের অগ্নি মশাল’ এই স্লোগানে আজ ১৭ নভেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার দীঘিনালায় নান্যাচর গণহত্যা দিবসের ২৭তম বার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভা আয়োজন করেছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি) দীঘিনালা উপজেলা শাখা।

স্মরণসভার শুরুতে গণহত্যায় শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ও সম্মান জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

সকাল ১১ টায় দীঘিনালা ইউনিয়ন এলাকায় অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় পিসিপি’র দীঘিনালা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মিঠুন চাকমার সভাপতিত্বে ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নিলো চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, ইউপিডিএফ সংগঠক সজীব চাকমা, পিসিপি’র খাগড়াছড়ি জেলা সাধারণ সম্পাদক নিকেল চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের দীঘিনালা উপজেলা সভাপতি রিটেন চাকমা এবং পিসিপি’র দীঘিনালা উপজেলা অর্থ সম্পাদক অনন্ত চাকমা।

সভায় বক্তারা বলেন, আজকের এই দিনটি পাহাড়ি জনগণের একটি শোকাবহ দিন।  ১৯৯৩ সালের ১৭ নভেম্বর সংঘটিত এই গণহত্যা ছিল পাহাড়িদের ধ্বংস করার শাসকগোষ্ঠীর একটি অপকৌশল।

তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে ডজনের অধিক গণহত্যা সংঘটিত হয়েছে, কিন্তু এদেশের শাসকগোষ্ঠী কোন গণহত্যার বিচার করেনি। হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের আইনের আওতায় না এনে উল্টো আরো দমন-পীড়নের মাত্রা বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বক্তারা আরও বলেন, শাসকগোষ্ঠী পাহাড়ি জাতিসত্তাগুলোকে ধ্বংস করার জন্য ‘জুম্ম দিয়ে জুম্ম ধ্বংসের’ চক্রান্ত চালাচ্ছে। একদিকে উন্নয়ন নামে, পর্যটন নামে ভূমি বেদখল করা হচ্ছে, অন্যদিকে চলছে নারী ধর্ষণ, নিপীড়ন, হত্যা-গুম-খুনসহ নানা নিপীড়ন।

বক্তারা বলেন, একটি স্বাধীন দেশে মানুষ আজ নিজ বাস্তুভিটা থেকে উচ্ছেদ হচ্ছে, নানা নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রামে গণতান্ত্রিক সভা সমাবেশে বাধা দেওয়া হচ্ছে। সরকার চরম ফ্যাসিবাদী কায়দায় জনগণের উপর শাসন-শোষণ জারি রেখেছে। একটি স্বাধীন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে এ ধরনের অন্যায় চলতে পারে না।

বক্তারা শোককে শক্তিতে পরিণত করে পার্বত্য চট্টগ্রামে নিপীড়িত জনগণের মুক্তির লড়াইয়ে সামিল হওয়ার জন্য ছাত্র সমাজ ও মুক্তিকামী জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।

স্মরণসভা থেকে বক্তারা পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনী ও সেটলার কর্তৃক সংঘটিত সকল গণহত্যার বিচার ও দোষীদের শাস্তির দাবি জানান।

 


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত/প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.