দীঘিনালায় শহীদ ভরদ্বাজ মুণির আত্মবলিদানের ২৬তম বার্ষিকী পালিত

0
8

দীঘিনালা : খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি), গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম (ডিওয়াইএফ) ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন(এইচডব্লিউএফ)-এর দীঘিনালা উপজেলা শাখার উদ্যোগে পার্বত্য চট্টগ্রামে গণতান্ত্রিক আন্দোলনের প্রথম শহীদ ভরদ্বাজ মুণির আত্মবলিদানের ২৬তম বার্ষিকী যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে।

“বীর শহীদরা চিরকাল উচ্চ মর্যাদায় সমাসীন, শহীদদের মহান আত্মত্যাগের চেতনায় জ্বলে উঠুন” এই শ্লোগানে আজ ১৩ অক্টোবর ২০১৮ (শনিবার) সকাল সাড়ে ৮ টায় দীঘিনালা ইউনিয়নের পাবলাখালীতে শহীদ ভরদ্বাজ মুণির স্মরণে নির্মিত অস্হায়ী স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান পিসিপি, ডিওয়াইএফ ও এইচডব্লিউএফ-এর দীঘিনালা শাখার নেতৃবৃন্দ, ইউপিডিএফ-এর পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দীঘিনালা ইউনিটের সদস্য লালন চাকমা, সুকিরণ চাকমা ও মেরিন ত্রিপুরা এবং শহীদ পরিবারের পক্ষ থেকে স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান শহীদ ভরদ্ধাজ মুণির মেয়ে কৃপাবালা চাকমা ও জনু বিকাশ চাকমা। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন পিসিপি খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি অমল ত্রিপুরা।

এরপর সকাল ১০টায় এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। পিসিপি দীঘিনালা উপজেলা শাখার সভাপতি নিকেল চাকমার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জীবন চাকমার সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন ইউপিডিএফ-এর দীঘিনালা ইউনিটের সদস্য লালন চাকমা, পিসিপি’র খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি অমল ত্রিপুরা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম দীঘিনালা উপজেলা সহ-সভাপতি রিটেন চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারন সম্পাদক চৈতালি চাকমা। এছাড়া মঞ্চে উপস্থত ছিলেন শহীদ ভরদ্বাজ মুণি’র মেয়ে কৃপাবালা চাকমা ।

সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৯২ সালের আজকের এই দিনে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও পাহাড়ি গণপরিষদের আয়োজিত সমাবেশে যোগ দিতে এসে সেনা-সেটলার ও সেনাসৃষ্ট দুর্বৃত্তদের হাতে ৭০ বছরের বৃদ্ধ ভরদ্বাজ মুণি চাকমা নিজেকে আত্মবলিদান দিয়েছেন। তাঁর এই আত্মবলিদান কখনো বৃথা যেতে পারে না। পার্বত্য চট্টগ্রামের ইতিহাসে শহীদ ভরদ্বাজ মুণির নাম অমর-অক্ষয় হয়ে থাকবে।

বক্তারা আরো বলেন, ভরদ্বাজ মুণিকে হত্যার মধ্য দিয়ে সেনা-শাসকচক্র পার্বত্য চট্টগ্রামে অধিকার আদায়ের ন্যায়সঙ্গত আন্দোলন নস্যাৎ করে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু ছাত্র-জনতাকে দমিয়ে রাখা যায়নি। নব্বই দশকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জুড়ে ছাত্র-গণজাগরণ সৃষ্টি হয়েছিল।

তারা বলেন, শাসকগোষ্ঠীর ষড়যন্ত্র থেমে নেই। আন্দোলন বাধাগ্রস্ত করার জন্য একদিকে সেনাবাহিনীকে দিয়ে নিপীড়ন-নির্যাতন চালাচ্ছে, অপরদিকে নব্য মুখোশ বাহিনী সৃষ্টি করে এবং সংস্কারবাদী জেএসএস-কে দিয়ে খুন, অপহরণের মাধ্যমে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি জিইয়ে রেখেছে। এই সন্ত্রাসীদের দিয়ে গত ১৮ আগস্ট খাগড়াছড়ি স্বনির্ভর বাজারে পিসিপি নেতা তপন চাকমা, এল্টন চাকমা ও যুব নেতা পলাশ চাকমাসহ ৭ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে। শাসকগোষ্ঠীর এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে জনগণকে রুখে দাঁড়াতে হবে।

বক্তারা শহীদ ভরদ্বাজ মুণিসহ সকল শহীদদের আত্মবলিদান থেকে শক্তি সঞ্চয় করে শাসকগোষ্ঠীর সকল ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে নিপীড়িত জনগণের মুক্তির সনদ পূর্ণস্বায়ত্তশাসন আদায়ের লড়াইয়ে সামিল হওয়ার জন্য ছাত্র-যুব-নারী সমাজ তথা মুক্তিকামী জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, ১৯৯২ সালের ১৩ অক্টোবর দীঘিনালায় পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও পাহাড়ি গণ পরিষদের আয়োজিত শান্তিপূর্ণ সমাবেশে অংশ নিতে এসে সেনা-সেটলার ও সেনাসৃষ্ট দুর্বৃত্তদের যৌথ আক্রমণে মাইনি ব্রিজের সন্নিকটে শহীদ হন ৭০ বছরের বৃদ্ধ ভরদ্বাজ মুণি চাকমা। এছাড়া হামলায় গুরুতর জখম হয়েছিলেন ডজনের অধিক নারী-পুরুষ।
———————-
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.