নান্যাচরে পরকীয়ার জেরে এক ব্যক্তি খুন

0
0

নান্যাচর॥ রাঙামাটি জেলার নান্যাচরে মকবুল চাকমা নামে এক ব্যক্তি খুন হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে নান্যাচর উপজেলা রেস্ট হাউজ ও থানার মধ্যবর্তী স্থানে এ ঘটনা ঘটে। ধারণা করা হচ্ছে পরকীয়া প্রেমের জেরে এ ঘটনা ঘটতে পারে।

Nannyachar m copyনাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গ্রামবাসী সিএইচটি নিউজ ডটকমকে বলেন, প্রায় বছর খানেক আগে মকবুল তার নিজের স্ত্রী-পুত্র-কন্যা থাকা সত্বেও বড়পুল পাড়ায় পরিমল চাকমার (৩০) স্ত্রী দীপালি চাকমার (২৫) সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরিমল চাকমার বাড়ি খাগড়াছড়ির লক্ষ্মীছড়ি ও তিনি পুলিশ বিভাগে চাকরি করতেন। শৃঙ্খলাজনিত কারণে এক বছর আগে তিনি চাকুরীচ্যুত হন ও জেল খাটেন। গত সপ্তাহ খানেক আগে তিনি খাগড়াছড়ি জেল থেকে ছাড়া পান।

উক্ত গ্রামবাসী আরো জানান, পরিমল চাকমা জেলে থাকার সময় মকবুল তার স্ত্রী ও এক সন্তানের জননী দীপালির সাথে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরে সে তাকে নিয়ে গোপনে পালিয়ে যায় এবং নান্যাচর থানা সদরে বিয়ে না করে তার সাথে অবৈধভাবে সংসার করতে থাকে।

এদিকে পরিমল চাকমা জেল থেকে ছাড়া পেয়ে বিস্তারিত ঘটনা জানতে পারেন। তিনি এলাকায় মুরুব্বীদের কাছে বিচার দাবি করেন এবং তার স্ত্রীকে ফেরত চান। কিন্তু সমাজের মুরুব্বীদের চেষ্টা সত্বেও মকবুলকে গ্রাম্য বিচারে হাজির হতে বাধ্য করা যায়নি। এ জন্য পরিমল অত্যন্ত হতাশ হয়ে পড়েন।

এলাকাবাসীর সাথে আলাপ করে আরো জানা যায়, মকবুল (৪৫) এক সময় ইউপিডিএফের কাজে সহযোগিতা করতো। কিন্তু অন্য একজনের স্ত্রীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলার অপরাধে তাকে তিন মাস আগে ইউপিডিএফ থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয়। এরপর সে দীর্ঘ সময় লুকিয়ে থাকে। তবে এক পর্যায়ে নান্যাচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা তাকে কোলে তুলে নেন ও মাসলম্যান হিসেবে কাজে লাগান। এ সুযোগে মকবুল এলাকায় ত্রাস সৃষ্টির চেষ্টা চালায় ও চাঁদাবাজি করে টাকা পয়সা কামাই করতে থাকে।

মকবুল চাকমা পরিমলের স্ত্রীর সাথে নান্যাচর সদরে ভাড়া বাসায় থাকতো। তার আসল স্ত্রী নিপা চাকমা দুই মেয়ে ও এক ছেলেসহ থাকে নান্যাচরের বড়পুল পাড়ায়। বড় মেয়েটির নাম এন্টি চাকমা(১৬) এসএসসি পাশ করেছে। ছোট মেয়ের নাম খুশি চাকমা(১৩), সপ্তম শ্রেণীতে পড়ে। আর ছেলেটির নাম পদ্মমনি চাকমা, বয়স ৬ বছর।

মকবুল চাকমা খুনের সাথে ইউপিডিএফকে জড়িয়ে আজ কিছু পত্রিকায় সংবাদ ছাপা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউপিডিএফ রাঙামাটি ইউনিটের সংগঠক সচল চাকমা সিএইচটি নিউজ ডটকমকে বলেন, ‘পত্রিকাগুলোর এ ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন রিপোর্ট অত্যন্ত দুঃখজনক। রিপোর্ট প্রকাশের আগে আমাদের মতামত জানতে চাওয়া উচিত ছিল।’

তিনি ঘটনার সাথে তাদের সংগঠনের জড়িত থাকার অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও কাল্পনিক বলে উড়িয়ে দেন এবং বলেন, ‘আমরা কেন মিছেমিছি তাকে খুন করতে যাবো। পার্টি থেকে বহিস্কার করে তাকে আমরা শাস্তি দিয়েছি। এর পর আর তার সাথে আমাদের কোন সম্পর্ক থাকতে পারে না। একটি পরকীয়া প্রেমঘটিত ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বকে রাজনৈতিক রূপ দেয়ার চেষ্টা অত্যন্ত গর্হিত ও রুচিহীন কাজ বলে আমরা মনে করি।’ ইউপিডিএফ নেতা মকবুল চাকমা খুুনের ঘটনা সম্পর্কিত অপপ্রচারে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।
—————

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.