পানছড়ির উল্টাছড়ি ইউনিয়নে সেটলার কর্তৃক পাহাড়িদের জায়গা বেদখলের অভিযোগ

0
352
পাহাড়িদের জায়গা বেদখল করে কচু চাষের জন্য মাটি প্রস্তুত করছে সেটলাররা

পানছড়ি প্রতিনিধি ।। খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলার ৫নং উল্টাছড়ি ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের কর্কট কার্বারী পাড়ায় সেটলার বাঙালি কর্তৃক পাহাড়ি গ্রামবাসীদের ভোগদখলীয় জায়গা বেদখল করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গ্রামবাসীদের সাথে কথা বলে উক্ত গ্রামের ১২ ত্রিপুরা গ্রামবাসীর অনন্ত ৬৫ একর পরিমাণ জায়গায় সেটলাররা কচু চাষের জন্য মাটি প্রস্তুত করার কাজ করছে বলে জানা গেছে। তবে এর পরিমাণ আরও বেশি হবে বলে স্থানীয়রা জানান।

উক্ত জায়গাগুলোতে দীর্ঘকাল ধরে পাহাড়ি জুমচাষসহ নানা বাগান-বাগিচা করে আসছেন।

যাদের ভোগদখলীয় জায়গা বেদখল করা হয়েছে বা বেদখলের প্রক্রিয়া চলছে তারা হলেন-

১। চমেন্দ্র ত্রিপুরা (২৮), পিতা- সুরেন্দ্র ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৪ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. জালাল, পিতা- অজ্ঞাত, সাং- উল্টাছড়ি।

২। মন কুমার ত্রিপুরা(৩৪) পিং- সুরেন্দ্র ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- মো.ফজলু মেম্বার, সাং- উল্টাছড়ি।

৩। বিনয় রঞ্জন ত্রিপুরা (৪৮) পিতা- কর্কট কার্ব্বারী। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. গাজী (সিএনজি ড্রাইভার), সাং- উল্টাছড়ি।

৪। সুরেন্দ্র ত্রিপুরা (৫৫) পিতা- শরৎ চন্দ্র ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৭ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. খোরশেদ, সাং- উল্টাছড়ি।

৫। যোগছা ত্রিপুরা (৪২, পিতা- কার্তিক চন্দ্র ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৭ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. সোরহাব, সাং- উল্টাছড়ি।

৬। রবীন্দ্র ত্রিপুরা (৪০) পিতা- তীর্থ রায় ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- রুস্তম আলী, সাং- উল্টাছড়ি।

৭। লহ ত্রিপুরা (২৮), পিতা- বিনয় রঞ্জন ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. কাদের (টেরা কাদের), সাং- উল্টাছড়ি।

৮। দীন বন্ধু ত্রিপুরা (৪২) পিতা- সত্য কুমার ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৭ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. গাজী (সিএনজি ড্রাইভার), সাং- উল্টাছড়ি।

৯। যতীন্দ্র ত্রিপুরা (৪৫) পিতা- শরৎ কুমার ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. খালেক মিয়া, সাং- উল্টাছড়ি।

১০। কল্প রঞ্জন ত্রিপুরা (২৬) পিতা- সুরেন্দ্র ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- মো.শাহিম, সাং- উল্টাছড়ি।

১১, শ্যামল ত্রিপুরা (২৮) পিতা- মজেন্দ্র ত্রিপুরা। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- অজ্ঞাত

১২। কুমার ছা ত্রিপুরা (৪৫) পিতা- অজ্ঞাত। তার জায়গার পরিমাণ- ৫ একর। বেদখলকারীর নাম- মো. নয়ন, সাং- উল্টাছড়ি।

গ্রামবাসীরা অভিযোগ করে বলেন, প্রতি বছর সেটেলার বাঙালিরা আমাদের ভোগদখলীয় জায়গায় জোরপূর্বকভাবে কচু চাষ করে থাকে। আর বাধা দিতে গেলে তারা নানা হুমকি-ধমকি দিয়ে থাকে। আমরা জুম চাষের জন্য খামার বাড়ি তুললে সেটলাররা সেগুলো পুড়িয়ে দেয়।

এভাবে তারা শত শত একর জায়গা বেদখল করছে। এখন তারা আমাদের বাড়ির উঠানের জায়গা পর্যন্ত কচু চাষের নামে বেদখল করে নিচ্ছে। বার বার বাধা দেওয়ার পরেও তারা আমাদের কোন কথা তোয়াক্কা করছে না। উল্টো আমাদের মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

গ্রামবাসীরা জায়গা বেদখল বন্ধ ও বেদখলকারী সেটলারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ৫ নং উল্টাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিজয় কেতন চাকমা বলেন, ‘আমার সাথে এ নিয়ে কেউ যোগাযোগ করেনি। তবে আমার পরামর্শ হচ্ছে- এ বিষয়ে পানছড়ি ইউএনও’র বরাবরে লিখিত অভিযোগ করলে ভালো হবে। তারপর আমরা প্রশাসনিক ও আইনগতভাবে বিষয়টি দেখবো’।

২৪৬ নং ছোট পানছড়ি মৌজার হেডম্যান জগদীশ রোয়াজার কাছ থেকে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন- ‘আমার কাছে কর্কট কার্বারী পাড়াবাসীরা এসেছেন। আর সেটেলারদের কাগজপত্রও আমি দেখেছি। ঐ কাগজপত্রের চৌহদ্দির সাথে জায়গার চৌহদ্দির কোন মিল নেই। আমার জানা মতে এসব জায়গাগুলো ঐ পাড়াবাসীরই। সময় পেলে আমি দ্রুত সরজমিনে গিয়ে তদন্ত করবো’।

 


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.