পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের চট্টগ্রাম মহানগর শাখার ১২তম কাউন্সিল সম্পন্ন

0
3

চট্টগ্রাম : বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি)-এর চট্টগ্রাম মহানগর শাখার ১২তম কাউন্সিল গতকাল ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

‘‘দালাল, সুবিধাবাদী, হতাশাগ্রস্থ চরম প্রতিক্রিয়াশীল, জাতীয় স্বার্থ পরিপন্থি , সেনা চর মীরজাফরীয় ভূমিকায় উত্তীর্ণ সংস্কার মুখোশদের প্রতিহত করুন এবং ছাত্রনেতা তপন, এল্টন ও যুবনেতা পলাশ চাকমার আত্মবলিদানের প্রত্যয়ে ঐক্যবদ্ধ হোন ছাত্র সমাজ’’ এই আহ্বানে চট্টগ্রাম নগরীর কদম মোবারক হলে এ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়।

পার্বত্য চট্টগ্রামে এযাবকালে অধিকার আদায়ের আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালনের মধ্য দিয়ে সকাল ১১টায় কাউন্সিল অধিবেশন শুরু হয়। কাউন্সিলে উপস্থিত থেকে প্রথম অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুনয়ন চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি থুইক্যচিং মারমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের  সদস্য রেশমী মারমা ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-তথ্য প্রচার সম্পাদক ত্রিরত্ন চাকমা।

বিদায়ী কমিটির অর্থ সম্পাদক হ্লাচিংমং মারমার সঞ্চালনায় কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন সহ-সভাপতি আলো জ্যোতি চাকমা।

বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনা সরকার কর্তৃক পরিকল্পিতভাবে নব্য মুখোশ বাহিনী সৃষ্টি করে এবং সংস্কারবাদী জেএসএসকে কৌশলে প্রলোভনে ফেলে পাহাড়িদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দিচ্ছে। মুখোশ-সংস্কার নামক নব্য মীরজাফরীয় বাহিনী দিয়ে শাসকগোষ্ঠী জুম্ম দিয়ে জুম্ম হত্যায় মেতে উঠেছে। জুম্ম জনগণের পরীক্ষিত সংগঠন ইউপিডিএফ এর নেতা-কর্মী ও সাধারণ জনগণকে টার্গেট করে হত্যা মিশন শুরু করেছে।

বক্তারা আরো বলেন, গত ১৮ আগস্ট দিবালোকে খাগড়াছড়ি শহরের স্বনির্ভরের মত পুলিশ ও বিজিবি’র নিরাপত্তা বেষ্টনির মধ্যে ছাত্র নেতা তপন, এলটন ও যুবনেতা পলাশ চাকমাসহ ৭জনকে সন্ত্রাসী লেলিয়ে দিয়ে হত্যা করা হয়। ঘটনা এতদিন হয়ে গেলেও প্রশাসন দোষীদের কাউকে গ্রেপ্তারের প্রচেষ্টা চালায়নি। এতে প্রমাণ হয় প্রশাসনের বিশেষ মহল এতে জড়িত। কেননা ঘটনাস্থলে সিসি ক্যামেরা ছিল এবং প্রশাসন ইচ্ছা করলে ক্যামেরার ফুটেজ দেখে সন্ত্রাসীদের ধরতে পারত।

বক্তরা আরো অভিযোগ করেন, বাংলাদেশে বাঙালি ভিন্ন পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য সাংবিধান মোতাবেক চাকরি ক্ষেত্রে সংরক্ষিত ৫% কোটা ব্যবস্থা বাতিলের জন্য সরকার উঠেপড়ে লেগেছে। অথচ দেশে সম্প্রতি ছড়িয়ে পড়া কোটা সংস্কার আন্দোলনের সাথে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কোটা বাতিলের কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। সরকার বলছে , প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতে কোন কোটা থাকবে না। অর্থাৎ তারা পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে চাকর বানিয়ে রাখতে চায়। ছাত্র সমাজকে এসমস্ত অপতৎপরতার বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা রাখতে হবে। ছাত্ররা যদি ফুঁসে না উঠে তাহলে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী আরও প্রান্তিক হবে।

কাউন্সিলের দ্বিতীয় অধিবেশনে হ্লাচিংমং মারমাকে সভাপতি, অমিত চাকামাকে সাধারণ সম্পাদক ও ক্যাচিং মারমাকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১৭ সদস্য বিশিষ্ট পিসিপি চট্টগ্রাম মহানগর শাখার নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়। নতুন কমিটিকে শপথ বাক্য পাঠ করান বিদায়ী কমিটির সহ-সভাপতি আলো জ্যোতি চাকমা।
—————-
সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.