পাহাড়ি নারীকে ধর্ষণ চেষ্টাকারী সেনা সদস্য কাদের ও বাশারের শাস্তির দাবিতে বাঘাইছড়িতে সাজেক নারী সমাজ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের বিক্ষোভ

0
2

বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি, সিএইচটিনিউজ.কম
Protest Baghaichari, 20 Feb 2014রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেকের লক্ষ্মীছড়িতে পাহাড়ি নারীকে ধর্ষণ চেষ্টাকারী সেনা সদস্য কাদের ও বাশারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও লক্ষীছড়ি সেনা ক্যাম্প প্রত্যাহারের দাবিতে সাজেক নারী সমাজ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘ বাঘাইছড়ি উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।  এছাড়া তারা প্রধানন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপিও পেশ করেন।

বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১১টায় বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ মাঠ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) কার্যালয়ের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের কেন্দ্রীয় সদস্য ও সাজেক ইউনিয়নের মেম্বার জ্যোৎস্না রাণী চাকমার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সাজেক নারী সমাজের সভাপতি নিরূপা চাকমা, মাচলং বাজার চৌধুরী ডা: অমর শান্তি চাকমা ও গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের বাঘাইছড়ি উপজেলা শাখার সহ সভাপতি অঙ্গদ চাকমা।

এছাড়া সংহতি জানিয়ে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন সাজেক ইউপি চেয়ারম্যান অতুলাল চাকমা, বঙ্গলতলী ইউপি চেয়ারম্যান তারুসি চাকমা, রূপকারী ইউপি চেয়ারম্যান পারদর্শী চাকমা, মারিশ্যা ইউপি চেয়ারম্যান তন্টু মনি চাকমা এবং উইমেন রিসোর্স নেটওয়ার্কের সুমিতা চাকমা ও বনিতা চাকমা।

সমাবেশে বক্তারা গত ১৮ ফেব্রুয়ারী,২০১৪ আনুমানিক দুপুর ১২.০০ টার সময়ে সাজেক ইউনিয়নের লক্ষীছড়ি মুখ গ্রামে এক পাহাড়ি নারীকে পার্শ্ববর্তী লক্ষীছড়ি আর্মি ক্যাম্পের ওয়ারেন্ট অফিসার কাদের ও সিপাহী বাশার ধর্ষণের চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন।

তারা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, এ ঘটনাটি লক্ষ্মীছড়িমুখ এলাকার পাহাড়ি অধিবাসীদের মনে চরম আতংক সৃষ্টি করেছে। বিভিন্ন প্রয়োজনে বাড়ির পুরুষ সদস্যদের প্রায় সময় বাহিরে থাকতে হয়। এসময় নারীরা বাড়িতে একা থাকে। উক্ত ঘটনায় আর্মি ক্যাম্পের আশেপাশের অধিবাসীরা তাদের পরিবারের নারী সদস্যদের নিরাপত্তা নিয়ে চরম উৎকণ্ঠা ও আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে।

সমাবেশ শেষে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি পেশ করেন।

স্মারকলিপিতে তারা বাঘাইহাট জোনের অধীন লক্ষীছড়িতে অবস্থিত অস্থায়ী সেনা ক্যাম্পটি অবিলম্বে প্রত্যাহার, পাহাড়ি নারীর সাথে অশালীন ও অসদাচরণের দায়ে ওয়ারেন্ট অফিসার কাদের ও সেনা সদস্য বাশারকে সেনাবাহিনীর চাকরি থেকে বহিস্কার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া এবং এ ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে তার জন্য যথোপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণের  দাবি জানান।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.