প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন ও সমাবেশ

0
78

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ।। খাগড়াছড়ি সদরের বলপিয়ে আদামে প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণে জড়িতদের গ্রেফতারপূর্বক সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস কাউন্সিল(বিএমএসসি) ও ত্রিপুরা স্টুডেন্টস্ ফোরাম (টিএসএফ)।

আজ রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সামনে এ মানবন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় আড়াইশো সচেতন শিক্ষার্থী স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে।

খাগড়াছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে মিছিল নিয়ে তারা খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবে এসে মানববন্ধন ও সমাবেশে মিলিত হন।

মানববন্ধন ও সমাবেশে বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস্ কাউন্সিল(বিএমএসসি) খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিঅংগ্য মারমা সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন ত্রিপুরা স্টুডেন্টস্ ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নক্ষত্র ত্রিপুরা।

এতে আরও বক্তব্য রাখেন  ত্রিপুরা স্টুডেন্টস্ ফোরামের  কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হেলিন ত্রিপুরা ও খাগড়াছড়ি সদর শাখার শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক নিশি ত্রিপুরা, বাংলাদেশ মারমা স্টুডেন্টস্ কাউন্সিলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মংসাই মারমা ও খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির সভাপতি ক্যপ্রুসাই মারমা।

এছাড়াও সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক নীতি শোভা চাকমা ,সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট এর খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সদস্য কৃপায়ন ত্রিপুরা, গোলাবাড়ি মৌজার হেডম্যান উক্যসাইন চৌধুরী, মাতাই পুখুরী সেচ্ছাসেবক এর সভাপতি পিন্টু ত্রিপুরা ও  WRN এর প্রতিনিধি আর্থি চাকমা।

বক্তারা বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের বিচারহীনতা সংস্কৃতির জন্য প্রতিনিয়ত ধর্ষণের মতো মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটে চলেছে, যা নিঃসন্দেহে পার্বত্য চট্টগ্রামের জন্য অশনিসংকেত। তারা বলেন, শুধু পার্বত্য চট্টগ্রামে নয়, সারাদেশে প্রতিনিয়ত নারী ধর্ষণ, নির্যাতনের ঘটনা ঘটেই চলেছে। একটি স্বাধীন দেশে কেন এসব ঘটনা ঘটছে রাষ্ট্রকে এর জবাবদিহি করতে হবে।

এদেশের প্রধানমন্ত্রী, স্পিকার, বিরোধীদলীয় নেত্রী নারী হওয়া সত্ত্বেও দেশে নারীর ওপর এমন সহিংসতা কেন হচ্ছে তা নিয়ে বক্তারা প্রশ্ন তোলেন।

বক্তারা আরো বলেন, রাষ্ট্র পরিকল্পিতভাবে সেটলারদের পার্বত্য চট্টগ্রামে এনেছে। রেশন দিয়ে তাদেরকে এখানে রাখা হয়েছে। এই সেটলারদের কারণে ভূমি বেদখল, নারী ধর্ষণসহ নানা সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।

তারা পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারাদেশে নারী নিপীড়নসহ সকল অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে ছাত্র সমাজকে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমাদের আর পিছনে যাবার জায়গা নেই। আমাদের সবাইকে এক সাথে অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।

বক্তারা গণধর্ষণ ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামিদের জনসম্মুখে আনার দাবি জানিয়ে বলেন, বিভিন্ন মিডিয়ায় ৭ জনকে গ্রেফতারের খবর জানা গেলেও পুলিশ গ্রেফতারকৃত আসামিদের পরিচয় প্রকাশ করছে না। আমরা অপরাধীদের জনম্মুখে দেখতে চাই, জনসম্মুখে তাদের বিচার চাই।

মানববন্ধন ও সমাবেশ থেকে বক্তারা দ্রুত বিচারের মাধ্যমে বলপিয়ে আদামে প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

একই সাথে তারা  অতীতে এবং সাম্প্রতিক সময়ে বান্দরবান, মহালছড়ি, দীঘিনালাসহ বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত ধর্ষণ, নির্যাতনের ঘটনারও বিচার দাবি করেন। অন্যথায় ছাত্র সমাজ ঐক্যবদ্ধ হয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে বলে জানিয়ে দেন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.