বিলাইছড়িতে সেনাবাহিনী কর্তৃক দুই ব্যক্তিকে আটক ও নির্যাতনের অভিযোগ

0
75

রাঙামাটি ।। রাঙামাটির বিলাইছড়ি উপজেলার কেংড়াছড়ি ইউনিয়নের পিক্যাছড়ি গ্রাম থেকে সেনাবাহিনী কর্তৃক দুই ব্যক্তিকে আটক ও তাদের ওপর শারীরিক নির্যাতন চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গতকাল রবিবার (২৭ ডিসেম্বর ২০২০) বিকালে এই আটক ও নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

আটক ও নির্যাতনের শকার দুই ব্যক্তি হলেন- ১. সুনীতি চাকমা (২৯), পিতা-ধন লাল চাকমা ও ২. গনেশ্বর চাকমা (৫০), পিতা-মৃত নীলাম্বর চাকমা। তবে সুনীতি চাকমা রাতে সেনা হেফাজত থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল বিকাল আনুমানিক ৫:৩০ টার দিকে বিলাইছড়ি সেনা জোনের সেকন্ড-ইন- কমান্ড (টুআইসি) মেজর আখেল আহমেদ ও গাছকাবা ছড়া সেনা ক্যাম্পের কমাণ্ডার সুবেদার শামসু-এর নেতৃত্বে প্রায় ৪০ জনের একটি সেনাদল কেংড়াছড়ি ইউনিয়নের পিক্যাছড়ি গ্রামে হানা দেয়। এসময় সেনা সদস্যরা উক্ত দুই ব্যক্তিকে আটক করে তাদের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালায়।

পরে আটক দু’জনকে বিলাইড়ি সেনা জোনে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নেওয়ার পর এক পর্যায়ে আটক সুনীতি চাকমা সুযোগ বুঝে রাত ১১ টার দিকে সেনা জোন থেকে পালিয়ে যান বলে জানা গেছে।

তার (সুনীতি) মাধ্যমে জানা যায়, আটকের পর তাদের দু’জনকে বিলাইছড়ি জোনে নেওয়া হয়। সেখানে নেওয়ার পর এক পর্যায়ে মেজর আখেল আহমেদ ফোনে কোনো এক উধ্বতন কর্মকর্তার কাছ থেকে জিজ্ঞাসা করেন ‘স্যার, দুইজন ”সন্ত্রাসীকে” ধরেছি, তাদেরকে ক্রসফায়ারে দেবো কিনা’? এই কথা শুনে ক্রসফায়ারে খুন হওয়ার ভয়ে তিনি সুযোগ পেয়ে জোন থেকে পালিয়ে যান।

এদিকে, এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অপর আটক গনেশ্বর চাকমাকে এখনও বিলাইছড়ি সেনা জোনে রাখা হয়েছে। ফলে তাকে নিয়ে পরিবারের লোকজন উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন।

 


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত/প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.