ভিকটিমের জবানিতে সাজেকে বিজিবি সদস্য কর্তৃক ধর্ষণ প্রচেষ্টার বিবরণ

0
1

সিএইচটিনিউজ.কম
Raped4রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের দুর্গম শিয়ালদাইলুই এলাকার ভুষন কার্বারী পাড়ায় বিজিবি সদস্য কর্তৃক গত সোমবার (৩ নভেম্বর) একজন জুম্মনারীকে ধর্ষণ প্রচেষ্টার ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার শিকার ওই নারী সেদিনের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, আমি আমার বড়বোন ও আমার আরেক ছোট বোনকে নিয়ে ছড়ায় গিয়ে গোসল করতে ও পানি আনতে যাই। এসময় বিজিবির ৫ জন সদস্য একই ছড়ায় গোসল করতে যায়। তাদের মধ্যে তিনজন গোসল শেষ হলে ক্যাম্পে চলে যায়। বাকি দুইজনের একজন বিজিবি সদস্য আমি গোসল করা শেষ করে পানি তুলে নিয়ে আসার সময় আমার কাছে ঘেসে বসে এবং এ সময় অন্য বিজিবি সদস্য দাঁড়িয়ে ছিলো।

তিনি জানান, বসে থাকা বিজিবি সদস্য তার সাথে বাংলা ভাষায় কথা বলার চেষ্টা করে।  তখন তিনি ত্রিপুরা ভাষায় বলেন, আঙ বাংলা কক মাইয়া, আঙ বাই তোমালে তাপে থা যার বাংলা অর্থ হলো, আমি বাংলা ভাষা বুঝি না, আমার সাথে কেন ঝামেলা করো? এটা বলার পরই ধর্ষণপ্রচেষ্টার শিকার নারী পানি ভরা পাতিল মাথায় নিয়ে আসার উদ্যোগ নেন। ঠিক এই সময় কথা বলতে থাকা বিজিবি সদস্য তাকে পিছন থেকে জাপটে ধরে। জাপটে ধরামাত্রই তিনি ভয়ে চিৎকার দিতে শুরু করেন এবং প্রাণপণে পালিয়ে গ্রামের দিকে চলে আসেন। গ্রামে আসামাত্র তিনি গ্রামের মানুষজনকে ঘটনার কথা জানান। কিছুক্ষণ পরে গ্রামের যুবকেরা বিজিবি ক্যাম্পে গিয়ে বিজিবি সদস্যকে ধরে আনার চেষ্টা করে।

এ বিষয়ে গ্রামের কার্বারী ভুষণ ত্রিপুরা জানান, রফিকুল নামে এক বিজিবি সদস্য এই ধর্ষনের চেষ্টা করেছে। তিনি বলেন, পাকিস্তান আমল থেকে আমরা সাজেক এলাকায় বসবাস করছি। এতদিন শান্তিতে ছিলাম, এ ধরণের কোনো ঘটনা এখনো ঘটেনি। কিন্তু মাত্র ৬ মাস হলো বিজিবি ক্যাম্পটি স্থাপিত হওয়ার পরে এই ধর্ষণপ্রচেষ্টার ঘটনা ঘটলো। তিনি জানান, এখন আমরা শান্তিতে নেই। এছাড়া তিনি বলেন, যে জায়গায় বিজিবি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে সে জায়গার মালিক আমি। তিনি বলেন, বিজিবি উক্ত জায়গায় ক্যাম্প স্থাপন করার সময় তার কাছ থেকে কোনো অনুমতি নেয়নি।

গ্রামের যুবনেতা তজেন্দ্র ত্রিপুরা বলেন, আমরা যখন ঘটনাটি জনতে পারলাম তখন ১০/১৫জন যুবক একত্র হই। এরপর আমরা ধর্ষণ প্রচেষ্টার শিকার নারী ও তার বড় বোনকে নিয়ে বিজিবি ক্যাম্পের দিকে যাই। আমরা সরাসরি বিজিবি ক্যাম্পের ভেতর ঢুকে পড়ি এবং বিজিবি সদস্যদের দেখিয়ে মেয়েটিকে বলি, কে তোমাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে বা শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেছে আমাদের দেখিয়ে দাও। মেয়েটি আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলে আমি রফিকুল নামে উক্ত বিজিবি সদস্যের হাত ধরি। এরপর পাড়ার যুবকেরা বিজিবির উক্ত সদস্যকে কিলঘুষি মারতে থাকে। পরে বিজিবির অন্য সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।  এ সময় ক্যাম্পের সুবেদার নাসির যুবকদের সাথে দেখা করতে আসেন। তিনি বিজিবি সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান। এছাড়া তিনি তাদের সাথে সালিশে বসার জন্য বলেন। এ সময় যুবকরা উত্তেজিত স্বরে বলে, আমরা আমাদের নারীদের ইজ্জ্বত রক্ষা করতে চাই, তোমাদের সাথে কথা বলবো না। একথা বলার পরে তারা সেখান থেকে রাগে ক্ষোভে অপমানে দুঃখে চলে আসে।

তজেন্দ্র ত্রিপুরা জানান, এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে বিজিবির সদস্যরা আমাদের নারীদের উপর আরো বড় ঘটনা ঘটাবে। তিনি উক্ত এলাকায় বিজিবি ক্যাম্প স্থাপন করা ঠিক কাজ হয়নি বলে মতপ্রকাশ করেন।

তথ্য সূত্র: সিএইচটি২৪.কম
———————

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.