মাটিরাংগায় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের হুমকিতে আতঙ্কে পাহাড়িরা

0
4

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি, সিএইচটিনিউজ.কম
সদ্য সমাপ্ত হওয়া জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হাতি মার্কায় ভোট দেয়ার কারণে খাগড়াছড়ির মাটিরাংগা উপজেলার তাইন্দং, গোমতি সহ বিভিন্ন এলাকায় নির্বাচনের পর থেকে পাহাড়িদেরকে হুমকি-ধামকি, ভয় ভীত প্রদর্শন, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও রাতের বেলায় মহড়া দিয়ে জনমনে ভীতি সৃষ্টি করছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। ফলে চরম আতঙ্কে রয়েছেন ওই এলাকার পাহাড়িরা।  তাইন্দং ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম (তাজু) নিজেই এসবের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে স্থানীয় পাহাড়িরা অভিযোগ করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, নির্বাচনের পর থেকে হাতি মার্কায় ভোট দেওয়ার অভিযোগ করে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বিভিন্নভাবে মারমা, ত্রিপুরা সম্প্রদায়কে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করছে, মোবাইলে হুমকি দিচ্ছে, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ ও ঘরবাড়িতে হামলা চালাচ্ছে। গতকাল ৯ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার রাতে গোমতির টাকার মনি পাড়া এলাকায় তারা বন্দুক দিয়ে গুলির আওয়াজ করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করার চেষ্টা চালিয়েছে।

এছাড়া গত ৬ জানুয়ারি  থেকে পাহাড়িরা যাতে তাইন্দং বাজারে যেতে না পারে এবং মালামাল বেচা-কেনা করতে না পারে সেজন্য পাহাড়ি গ্রামে জীপ গাড়ি ও মোটর সাইকেল চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ৩নং বড়নাল ইউপি চেয়ারম্যান আলী আকবরও একই কায়দায় পাহাড়িদের (ত্রিপুরা ও মারমাদের) হুমকি প্রদর্শন করছে।এদিকে,  হাতি মার্কায় ভোট দেওয়ার অপরাধে ডাকবাংলা বোর্ড অফিসে ৩-৪টি বাঙালি পরিবারের ঘরবাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, মাটিরাংগা উপজেলা চেয়ারম্যান শামসুল ইসলামের নির্দেশে আওয়ামী লীগ নেতা জুনু মিয়া, লেংড়া মনির, ডা: তোফায়েল ও হুমায়ূন গংরা গোমতি বাজারের পার্শ্ববর্তী ত্রিপুরা পাড়ায় রাতের বেলায় মহড়া দিয়ে এলাকায় জনমনে ভীতি সৃষ্টি করছে।ফলে ওই এলাকার পাহাড়িরা বর্তমানে চরম আতঙ্কের মধ্যে দিনযাপন করছেন। যে কোন সময় আবারো সাম্প্রদায়িক হামলার শিকার হতে পারেন এমন আশংকা করছেন পাহাড়িরা।

ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)-এর খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের সমন্বয়ক প্রদীপন খীসা এক বিবৃতিতে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের এহেন কর্মকান্ডের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে তিনি অবিলম্বে এ ধরনের কর্মকান্ড বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ ও পাহাড়িদের নিরাপত্তা বিধানের জোর দাবি জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গতবছর অর্থাৎ ২০১৩ সালের ৩ আগস্ট কামাল হোসেন নামে এক বাঙালিকে অপহরণ নাটক সাজিয়ে  সেটলার বাঙালিরা তাইন্দংয়ে পাহাড়িদের কয়েকটি গ্রামে হামলা, বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। এর আগে টাকার মনি পাড়া সহ কয়েকটি গ্রামে পাহাড়িরা নিজ গ্রাম থেকে উচ্ছেদের শিকার হয়।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.