মিরসরাইয়ে ত্রিপুরা নেতাকে হত্যার হুমকি, নিন্দা জানিয়ে তিন পাহাড়ি সংগঠনের বিবৃতি

0
0

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রামের মিরসরাই ইউনিয়নে ত্রিপুরা কল্যাণ পরিষদের নেতা সুরেশ ত্রিপুরাকে স্থানীয় বাঙালী কর্তৃক হত্যার হুমকির ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘ ও বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) চট্টগ্রাম মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ।

আজ মঙ্গলবার (১৭ মে) বিকালে পিসিপি চট্টগ্রাম নগর শাখার সহ-সভাপতি পলাশ চাকমা স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক যৌথ বিবৃতিতে এ নিন্দা জানানো হয়।

Bibrityবিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘গতকাল (সোমবার) চট্টগ্রাম জেলার উত্তর তালবাড়ীয়া ৬নং ওয়ার্ড ৯নং মিরসরাই সদর ইউনিয়নে স্থানীয় বাঙালী মো: মান্নান (১৮) পিতা-মো: চাঁন মিয়া, মো: সেলিম (২০) চোলাই মদ খোঁজার নামে রাত ১১.২০ টায় সুরেশ ত্রিপুরার বাড়িতে হানা দেয়। কিন্তু সুরেশ ত্রিপুরার বাড়িতে চোলাই মদ না পেয়ে তারা চলে যায়। প্রায় আধ ঘন্টা পর রাত ১২ টায় তারা আবার সুরেশ ত্রিপুরার বাড়িতে হানা দেয়। এসময় সুরেশ ত্রিপুরা পরিবার নিয়ে ঘরের দরজা বন্ধ কেরে ঘুমাচ্ছিলেন। হঠাৎ দরজায় শব্দ পেয়ে সুরেশ ত্রিপুরা কে কে বললে চিৎকার করলে মান্নান ও সেলিম নিজের পরিচয় দিয়ে তাকে (সুরেশ ত্রিপুরাকে) নিজ বসতভিটা ছেড়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার জন্য এক সপ্তাহ সময়সীমা বেঁধে দেন। অন্যথায় মেরে ফেলা হবে বলে হুমকি দেন।’

নেতৃবৃন্দ গভীর উদ্বেগ জানিয়ে বলেন, ”শত শত বছর ধরে ত্রিপুরা জাতিসত্তার জনগণ চট্টগ্রামে মিরসরাইয়ে বসবাস করে আসছে। তাদের বসতভিটা বেদখল করার জন্য এলাকার প্রভাবশালী ভূমিদস্যুরা ত্রিপুরা জাতিসত্তার উপর নির্যাতন-নিপীড়ন চালিয়ে আসছে।” তারই ধারাবাহিকতায় সুরেশ ত্রিপুরাকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে বলে নেতৃবৃন্দ মনে করে। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে ভূমিদস্যুদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিপ্রদানসহ মিরসরাইয়ে ত্রিপুরা জাতিসত্তার ভূমি রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানান। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার হুমকি দেন।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি বিজয় চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের সভাপতি রুপা চাকমা ও পিসিপির সভাপতি বিপুল চাকমা।
—————

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.