ছাত্রনেতা রমেল চাকমাকে হত্যার প্রতিবাদে ও দোষী সেনা সদস্যদের শাস্তির দাবিতে

রমেল হত্যা প্রতিবাদ কমিটি ও পিসিপি’র উদ্যোগে নান্যাচর বাজার বয়কট কর্মসূচী পালন

0
1

18110807_456393168039801_1871181451_nনান্যাচর প্রতিনিধি : সেনাবাহিনীর অমানুষিক শারিরিক নির্যাতনে শহীদ ছাত্রনেতা রমেল চাকমা হত্যার প্রতিবাদে ও হত্যাকারী নান্যাচর জোন কমা-ার মোঃ বাহালুল আলম ও মেজর তানভীরসহ জড়িত সেনা সদস্যদের শাস্তির দাবিতে নান্যাচর বাজার বয়কট কর্মসূচী পালন করেছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) ও রমেল চাকমা হত্যা প্রতিবাদ কমিটি।

আজ ২৬ এপ্রিল বুধবার পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী স্বতস্ফূর্তভাবে বাজার বর্জন করে কর্মসূচীর প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন নান্যাচর এলাকার জন সাধারণ।

আজ নান্যাচর বাজারের সাপ্তাহিক হাটের দিন হওয়া সত্ত্বেও স্কুলের পরীক্ষার্থী ব্যতিত কাউকে বাজারে আসতে দেখা যায়নি। বাজারে কোন লোকজন না আসাতে অধিকাংশ দোকানপাট বন্ধ দেখা যায়। তবে কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে বাজার এলাকায় ব্যাপক ভাবে সেনা ও পুলিশের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

রমেল চাকমা হত্যা প্রতিবাদ কমিটি ও পিসিপি’র গত ২০ এপ্রিল সংবাদ মাধ্যমে দেয়া যৌথ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে রমেল চাকমাকে অমানুষিক শারিরিক নির্যাতনে হত্যার প্রতিবাদ ও হত্যাকারী নান্যাচর জোন কমান্ডার এবং মেজর তানভীর সহ জড়িত সেনা সদস্যদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ৩ দিনের কর্মসূচী ঘোষণা করেন। সেই কর্মসূচী অনুযায়ী আজ রমেল চাকমা হত্যা প্রতিবাদ কমিটি ও পিসিপি’র উদ্যোগে নান্যাচর বাজার বয়কট কর্মসূচী সফল ভাবে সম্পন্ন হয়।

উল্লেখ্য, গত ৫ এপ্রিল নান্যাচর উপজেলা পরিষদ এলাকা থেকে এইচএসসি পরীক্ষার্থ ও পিসিপি নান্যাচর থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক রমেল চাকমাকে আটক করে নান্যাচর জোনের সেনা সদস্যরা। আটকের পর তাকে জোনে নিয়ে গিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানুষিক নির্যাতন করা হলে রমেল গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর সেনারা তাকে থানায় হস্তান্তরে ব্যর্থ হয়ে রাতেই 18194041_130082344202483_2020816769604262524_nচট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায়। সেখানে সেনা নজরদারিতে দুই সপ্তাহ ধরে চিকিৎসাধীন থাকার পর গত ১৯ এপ্রিল তিনি মারা যান।
পরদিন ২০ এপ্রিল রমেল চাকমার মরদেহ চট্টগ্রাম থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে আনা হলে বুড়িঘাট বাজারে পৌঁছানোর পর পরিবারের লোকজনের কাছ থেকে মরদেহটি ছিনিয়ে নেয় সেনা সদস্যরা। এরপর পরিবারের কাছে মরদেহটি হস্তান্তর না করে ২১ এপ্রিল দুপুরে সেনা সদস্যরা নিজেরাই মরদেহটি পূর্বহাতিমারায় নিয়ে গিয়ে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে ফেলে।

নান্যাচর বাজার বয়কট কর্মসূচীর প্রতি সমর্থন জানিয়ে বাজার বর্জন করার জন্য নান্যাচর উপজেলাবাসীর প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন রমেল হত্যা প্রতিবাদ কমিটির আহব্বায়ক সুনন্দা তালুকদার এবং বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ(পিসিপি) কেন্দ্রীয় কমিটি সাধারন সম্পাদক অনিল চাকমা।

———————————————————–

সিএইচটি নিউজ ডটকম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.