রামগড়ে এক গ্রাম প্রধান ও তার জামাইকে আটক করেছে সেনাবাহিনী, ইউপিডিএফের নিন্দা ও প্রতিবাদ

0
0

সিএইচটিনিউজ.কম
Arrest5রামগড়: খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়নের জুমছড়া গ্রামের কার্বারী(গ্রাম প্রধান) পুশতো কুমার ত্রিপুরা(৪৫), পিতা খঞ্জল্যা ত্রিপুরা ও তার মেয়ের জামাই খাগড়াছড়ির সিঙ্গিনালা গ্রামের চাইহ্লা প্রু মারমা (২২)-কে আটক করেছে সেনাবাহিনী।

পুশতো কুমার ত্রিপুরা জুমছড়া গ্রামের কার্বারীর দায়িত্ব পালন করলেও বর্তমানে তিনি মানিকচন্দ্র পাড়ায় বসতিস্থাপন করছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৈসাবি উৎসব উপলক্ষে মঙ্গলবার মানিকচন্দ্র পাড়ায় দিনব্যাপী ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলার আয়োজন করা হয়। পুশতো কুমার ত্রিপুরা এ খেলাধুলার অনুষ্ঠান আয়োজনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এ উৎসব উপলক্ষে তার জামাই চাইহ্লা প্রু মারমাও সেখানে বেড়াতে যান। অনুষ্ঠান শেষে রাতে তারা বাড়িতে ঘুমিয়ে পড়েন। দিবাগত রাত অনুমানিক ১টার সময় সিন্দুকছড়ি জোনের একদল সেনা তার বাড়ি ঘেরাও করে শ্বশুর ও জামাই দু’জনকে ঘুম থেকে তুলে আটক করে নিয়ে যায়। তাদেরকে বর্তমানে সিন্দুকছড়ি জোনে আটক রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে।

উৎসব চলাকালে এ আটকের ঘটনায় এলাকার জনগণ তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

এদিকে, ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)-এর খাগড়াছড়ি জেলা দপ্তর থেকে দেয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ ঘটনার  নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।

ইউপিডিএফের প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগের নিরন চাকমা স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে  ক্ষোভ প্রকাশ করে বলা হয়, রামগড়-মাটিরাংগা এলাকায় এভাবে রাতের আঁধারে ঘুমন্ত অবস্থা থেকে তুলে নিয়ে নিরীহ লোকজনকে আটক করে সন্ত্রাসী সাজিয়ে মিথ্যা মামলায় জেল হাজতে প্রেরণ করা যেন সেনা সদস্যদর বদঅভ্যাসে পরিণত হয়েছে। প্রায় সময়ই সাধারণ নিরীহ লোকজনকে তাদের প্রমোশনের বলি হতে হচ্ছে। গ্রাম প্রধানরা পর্যন্ত তাদের নিপীড়নের হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না। জনগণের নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকার কথা বলে তারাই জনগণের উপর খবরদারি-নজরদারি, বিনাকারণে গ্রেফতার, হয়রানি, নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে। বৈসাবি উৎসব চলাকালে গ্রাম প্রধান ও তার জামাইকে আটকের ঘটনা আবারো প্রমাণিত হয়েছে সেনাবাহিনীই হচ্ছে এ অঞ্চলের জনগণের নিরাপত্তা হরণকারী।

বিবৃতিতে অবিলম্বে আটক গ্রাম প্রধান ও তার জামাইকে নিঃশর্ত মুক্তি এবং সেনাবাহিনী কর্তৃক যত্রতত্র ধরপাকড় ও সাধারণ লোকজনের উপর নিপীড়ন-নির্যাতন বন্ধের দাবি জানানো হয়েছে।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.