লামায় মোবাইল সার্ভিসিংয়ের দোকানগুলোতে নীল ছবির রমরমা বাণিজ্য: উদ্বিগ্ন অভিভাবকরা

0
0
সিএইচটিনিউজ.কম ডেস্ক:

লামা(বান্দরবান): বান্দরবানের লামায় মোবাইল সার্ভিসিংয়ের দোকান গুলোতে চলছে পর্ণো ছবির রমরমা বাণিজ্য। এসকল দোকানে পর্ণো ছবির ভিডিও ফুটেজ সহজ লভ্য হওয়ায় মুঠোফোনের মাধ্যমে উঠতি বয়সী ছেলে মেয়েদের হাতে হাতে সহজেই পৌছে যাচ্ছে এসকল নীল ছবি। এ অবাধ বাণিজ্যের কারনে উঠতি বয়সী ছেলে মেয়েদের নিয়ে অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন।

জানা গেছে, লামায় মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু হওয়ার পর উপজেলা সদরের লামা বাজারসহ প্রত্যন্ত এলাকার হাঁট-বাজার গুলোতে রাতারাতি ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠে অসংখ্য মোবাইল সার্ভিসিং বা মেরামত দোকান। এসকল দোকানের মালিকরা মেরামতে পারদর্শী না হলেও অবাধে চালিয়ে যাচ্ছেন পর্নো ছবির রমরমা বানিজ্য। তাদের এ বাণিজ্যের প্রধান খদ্দর হচ্ছে স্কুল-কলেজের উঠতি বয়সের ছেলে মেয়েরা। বাজারে বর্তমানে অল্প দামে অডিও, ভিডিও সম্বলিত মুঠোফোন সেট পাওয়া যাওয়ার সুবাধে স্কুল- কলেজের ছেলে মেয়েদের হাতে হাতে শোভা পাচ্ছে এসকল মোবাইল সেট। এসকল মোবাইলে মোমোরী কার্ড ঢুুকিয়ে মেরামতের দোকান গুলো থেকে সহজেই তারা ডাউন লোড করে নিচ্ছে পর্ণো ছবির রগরগা দৃশ্য সম্বলিত ভিডিও ফুটেজ।
এসকল ভিডিও ফুটেজ আবার মুঠোফোনের ব্লু টুথের মাধ্যমে ছড়িয়ে যাচ্ছে এক বন্ধুর মুঠোফোন থেকে অন্য বন্ধুর মুঠোফোনে। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, এসকল পর্ণো ছবি এখন শুধুমাত্র ছেলেদের মুঠোফোনে নয় বন্ধুদের মারফত ছড়িয়ে পড়েছে মেয়েদের মুঠোফোনেও। তারা আরও জানিয়েছেন, একটি কম্পিউটার এবং নামমাত্র কিছু যন্ত্রপাতি নিয়ে মেরামতের কথা বলে দোকান খূললেও মূলত এসকল দোকানের অন্যতম প্রধান ব্যবসা হচ্ছে পর্ণো ছবি ডাউন লোড করা। অনেক দোকানে মেমোরী কার্ড ক্রয় করলে ফ্রী পর্নো ছবি ডাউনলোড করে দেওয়া হচ্ছে বলেও জানা গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক অভিভাবক উদ্বেগ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, ছেলে মেয়েদের আবদারের কারনে মুঠোফোন ক্রয় করে দিয়ে এখন দেখছি ছেলে মেয়েদের চারিত্রিক অবক্ষয় হচ্ছে।

ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের মুঠোফোন মেরামত এর দোকান গুলো থেকে কখনো জ্ঞাতসারে আবার কখনো অজ্ঞাতসারে পর্ণো ছবি ঢুকিয়ে দেয়া হচ্ছে। কয়েকজন অভিভাবক জানিয়েছেন, অডিও, ভিডিও সম্বলিত মুঠোফোন অল্প দামে পাওয়া যাওয়ার কারনে ছেলে মেয়েরা টিফিনের টাকা বাঁচিয়ে মুঠোফোন ক্রয় করছে। আবার এসকল মুঠোফোনে গান ঢুকানোর নামে মেরামতের দোকান থেকে কিংবা বন্ধুর মোবাইল থেকে ব্লু টুথের মাধ্যমে পর্ণো ছবি লোড করছে। ফলে অল্প বয়সী ছেলে মেয়েদের মাঝে যৌন বিষয়ে আগ্রহ বাড়ার সাথে সাথে যৌন হয়রানী এবং ইভটিজিং এর প্রবনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার কারনে এলাকায় সামাজিক ও চারিত্রিক অবক্ষয়ের আশংকা দিখা দিয়েছে বলে সচেতন অভিবাবকরা জানিয়েছেন। এ বিষয়ে তারা আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ প্রশাসনের হস্থক্ষেপ কামনা করছেন ।(সূত্র: বার্তালাইভ২৪ ডটকম)


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.