সন্তু গ্রুপের অস্ত্র সংগ্রহের সংবাদে ইউপিডিএফের প্রতিক্রিয়া

0
0

সিএইচটিনিউজ.কম
ডেস্ক রিপোর্ট : সিএইচটি নিউজ ডটকমে প্রকাশিত সন্তু গ্রুপের অস্ত্র সংগ্রহের খবরের ব্যাপারে ইউপিডিএফ-এর প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে দলটির এক নেতা শান্তি দেব চাকমা বলেন, “সন্তু লারমা জুম্ম জাতিকে ধ্বংসের ঘৃণ্য খেলায় মেতে উঠেছেন। তার এই খেলা অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে।”

UPDF flagতিনি বলেন, “সন্তু গ্রুপের অস্ত্র সংগ্রহের উদ্দেশ্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাথে যুদ্ধ করা নয়, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রামও নয়; এর একমাত্র অসৎ উদ্দেশ্যে হলো ইউপিডিএফকে নির্মূল করা।  তার এইসব অস্ত্র সবই ব্যাবহৃত হবে নিজ ভাইয়ের বুক ঝাঁঝরা করে দেয়ার জন্য।”

তিনি প্রশ্ন করে বলেন, “কেন ইউপিডিএফকে নির্মূল করা, কেন আমাদের পার্টির নেতা কর্মী ও সমর্থকদের খুন করা? আমাদের কি অপরাধ? আমরা কি সরকারের দালালি করছি নাকি জাতীয় স্বার্থ বিরোধী কাজ করছি? আমরা যে ভূমি বেদখলের বিরুদ্ধে, সরকারের অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করছি, জুম্ম জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করছি এটাই কি আমাদের অপরাধ?”

সন্তু লারমাকে জঘন্য দালাল আখ্যায়িত করে শান্তি দেব চাকমা বলেন, “সন্তু লারমা আঞ্চলিক পরিষদে বসে সরকার ও সেনাবাহিনীর পক্ষ হয়েই ইউপিডিএফকে ধ্বংসের মাধ্যমে জুম্ম জাতিকে শেষ করার প্রজেক্ট বাস্তবায়ন করছেন। তার একমাত্র কাজ হলো ইউপিডিএফ-এর নেতাকর্মীদের খুন করা। এছাড়া তার আর কোন কাজ নেই।”

ইউপিডিএফের অন্য এক নেতা জয় মারমা সন্তু গ্রুপের সাথে সমঝোতার সম্ভাবনা সম্পর্কে বলেন, “আমরা  সন্তু দলের সাথে ঐক্য ও সমঝোতার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়েছি। অনেক ছাড় দিয়ে আমরা সন্তু লারমার সকল শর্ত মেনে নিয়ে ২০০৬ সালের প্রথম দিকে জেএসএস দ্বিধাবিভক্ত হওয়ার প্রাক্কালে তাদের সাথে একটা সমঝোতায় উপনীত হয়েছিলাম। কিন্তু সন্তু গ্রুপ কয়েকদিন যেতে না যেতেই সমঝোতার শর্ত লঙ্ঘন করে আবার আমাদের উপর আক্রমণ শুরু করে। এর পর শ্রদ্ধাবান ধর্মীয় গুরুসহ আরো অনেকে ঐক্যের চেষ্টা চালান, কিন্তু সন্তু বাবুর অনিচ্ছার কারণে কেউ সফল হয়নি।”

তিনি বলেন, “জুম্মদের নিজেদের মধ্যে ভাইয়ে ভাইয়ে হানাহানি হলে তা নিজেদের ক্ষতি। অপরদিকে তা সরকার ও সেনাবাহিনীর লাভ। এই সরল সত্য কথাটি সন্তু গ্রুপের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বুঝতে হবে। সন্তু লারমা তার আঞ্চলিক পরিষদের গদি টিকিয়ে রাখার জন্যই সরকারকে খুশী করতে নিজ ভাইয়ের বুকে গুলি চালাচ্ছে। সন্তু বাবু তার কর্মীবাহিনী ও জনগণকে বিভ্রান্ত করতে আন্দোলনের হাঁক ডাক করবেন, কিন্তু আন্দোলন করবেন না। সম্প্রতি অসহযোগ আন্দোলনের জন্য তর্জন গর্জন করেও শেষ বেলায় এসে আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষণা না দেয়া তারই প্রমাণ।”

জয় মারমা বলেন, “ইউপিডিএফ হলো জনগণের পার্টি। এই পার্টিকে কোন অপশক্তি দমন করতে পারবে না। পার্বত্য চট্টগ্রামের জুম্ম জনগণ গত ১৭ বছর এই পার্টিকে রক্ষা করেছেন, ভবিষ্যতেও রক্ষা করবেন। সন্তু গ্রুপ কয়েকটা অস্ত্র ও বোমা নিয়ে ইউপিডিএফকে ধ্বংস করতে চাইলে তারা নিজেরাই মহাভারতের পাণ্ডবদের হাতে দুর্যোধনদের মতো ধ্বংস হয়ে যাবে।”

তাই তিনি সন্তু গ্রুপের নেতাকর্মীদেরকে সন্তু লারমার লাঠিয়াল ও কামানের গোলার মতো ব্যাবহৃত না হয়ে আন্দোলনের সঠিক পথে ফিরে আসার আহ্বান জানান। তা না হলে ইতিহাস ও জুম্ম জনগণ তাদেরকে ক্ষমা করবে না বলে তিনি তাদেরকে হুঁশিয়ার করে করেন।

শেষে তিনি সন্তু লারমার জাতি ধ্বংসের খেলা নস্যাৎ করে দেয়ার জন্য ইউপিডিএফের পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধ হতে সর্বস্তরের জনগণের প্রতি আহ্বান জানান।
——————–

সিএইচটিনিউজ.কম’র প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ব্যবহারের প্রয়োজন দেখা দিলে যথাযথ সূত্র উল্লেখপূর্বক ব্যবহার করুন।


Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.