সাজেকের করল্যাছড়ি এলাকায় ‘ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধে জনগণের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভা

0
62

সাজেক প্রতিনিধি ।। রাঙামাটির সাজেক ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের করল্যাছড়ি এলাকায় ‘ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধে জনগণের ভূমিকা’ শীর্ষক উন্মুক্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এটা দ্বিতীয় দফায় আলোচনা

আজ বুধবার (১০ মার্চ ২০২১) সাজেক ‘ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত প্রতিরোধ কমিটি’ এই সভার আয়োজন করে।

সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত উন্মুক্ত আলোচনা সভায় সভায় রতন কার্বারীর সভাপতিত্বে ও শান্তি কুমার চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন অমর বিজয় চাকমা, শিমুল কার্বারী, জয় মঙ্গল চাকমাসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

বক্তারা বলেন, ১৯৯৭ সালের চুক্তি হওয়ার পরও পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি ফিরে আসেনি। সরকার চুক্তি বাস্তবায়নের কথা বলে দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে জুম্ম জনগণের সাথে প্রতরণা করে চলেছে। এরই মধ্যে জুম্মদের উচ্ছেদে নানা কার্যক্রম জোরদার করেছে সরকার। তাই ভাইয়ে ভাইয়ে আর হানাহানি নয়, পার্বত্য চট্টগ্রামের মাটি-মানুষকে রক্ষা করতে সকল জুম্ম দলগেুলোকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

বক্তারা আরও বলেন, ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত জাতির জন্য কতটা মারাত্মক ক্ষতির কারণ হয়েছে তা কারোর অজানা নয়। তারপরও এই সংঘাত থামছে না কেন? এর অন্যতম কারণ হচ্ছে শাসকগোষ্ঠীর ষড়যন্ত্র। শাসকগোষ্ঠীর এই পাতানো ষড়যন্ত্রের ফাঁদ থেকে জুম্ম দলগুলোকে বেরিয়ে এসে জনগণের মুক্তি জন্য লড়াই করতে হবে।

বক্তারা সংঘাত বন্ধে জনগণের করণীয় সম্পর্কে বলেন, দীর্ঘ ভ্রাতৃঘাতি সংঘাতের ফলে জনগণই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই জনগণকেই এই সংঘাতের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে হবে। প্রতিটি গ্রামে গ্রামে, এলাকায় এলাকায় সংঘাতের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলতে হবে। যে দলটি সংঘাত জিইয়ে রাখতে চাইবে সে দলকে সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

বক্তারা সকল জুম্ম দলগুলোকে আলোচনার মাধ্যমে সংঘাত বন্ধ করতে উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান। তারা বলেন, জনগণ অচিরেই সংঘাত বন্ধ চায়, জাতীয় বৃহত্তর ঐক্য চায়। জনগণের এই আকাঙ্ক্ষাকে আমলে নিয়ে ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত বন্ধ করুন। জনগণ এতে সাধুবাদ জানাবে, সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান করবে।

 


সিএইচটি নিউজে প্রকাশিত প্রচারিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি ,ভিডিও, কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট আইন অনুসরণ করে ব্যবহার করুন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.