সাজেক ও বাঘাইছড়িতে মানববন্ধন : পাহাড়ি অধ্যুষিত এলাকায় মসজিদ নয়, স্কুল চাই

0
333

বাঘাইছড়ি প্রতিনিধি ।। সাজেকে পাহাড়ি অধ্যুষিত এলাকায় মসজিদ নির্মাণের নামে পাহাড়ি উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র বন্ধ ও জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণ উপযোগী পরিবেশ গড়ে তোলার দাবিতে সাজেক ও বাঘাইছড়ি উপজেলা সদর এলাকায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ শনিবার (৩ অক্টোবর ২০২০) সকালে সাজেক ইউনিয়নের বাঘাইহাট ও শিজকছড়া এলাকায় এবং বাঘাইছড়ি সদর এলাকায় পৃথক পৃথকভাবে এলাকাবাসী এ মানববন্ধনের আয়োজন করেন।

মসজিদ নয়, স্কুল চাই’ শ্লোগানে আজ সকাল ১০টায় সাজেক ইউনিয়নের বাঘাইহাট এলাকায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে স্থানীয় কার্বারি দিপন জ্যোতি চাকমার সভাপতিত্বে ও রুপায়ন চাকমার সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন কার্বারি মিলন চাকমা ও কার্বারি ইঙ্গেস মোহন চাকমা প্রমুখ।

এর আগে সাজেকের শিজকছড়া এলাকায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন হগেন ত্রিপুরা, বিজয় চাকমা ও মিসেস্ শোভারানী চাকমা প্রমুখ।

অপরদিকে বাঘাইছড়ি উপজেলা সদর এলাকায়ও একই ইস্যুতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। এতে সন্তোষ কুমার চাকমা এলাকাবাসীর পক্ষে বক্তব্য রাখেন।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামে পাহাড়ি জাতিসত্তাসমূহকে ইসলামিকরণের পাঁয়তারা চালাচ্ছে। তারই অংশ হিসেবে সম্পূর্ণ পাহাড়ি অধ্যুষিত সাজেকে মসজিদ নির্মাণ করা হচ্ছে। এটা পাহাড়িদেরকে নিজ জায়গা-জমি থেকে উচ্ছেদ করার সরকারের আরেকটি ষড়যন্ত্র বলেও বক্তারা অভিযোগ করেন।

তারা বলেন, সাজেকে নেই পর্যাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, নেই পর্যাপ্ত শিক্ষক। অথচ সরকারের সেদিকে কোন সুনজর নেই। তারা বলেন, আমরা পাহাড়ি অধ্যুষিত এলাকায় মসজিদ চাই না, আমরা পর্যাপ্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষক চাইআমরা সুচিকিৎসা ও সুন্দরভাবে সাজেকে বসবাস করতে চাই

বক্তারা আরো বলেন, সাজেকে পর্যটন স্থাপন করার পর সেখান থেকে শতাধিক পাহাড়ি পরিবার উচ্ছেদের শিকার হয়েছেন। আরো উচ্ছেদ হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন শত শত পরিবার। শুধু তাই নয়, সাজেকে পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনের ফলে পরিবেশের ওপরও এর বিরাট ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে। যার ফলে বন্য প্রাণী থেকে শুরু করে জীব বৈচিত্র্য এখন হুমকির সম্মুখীন।

বক্তারা সাজেক থেকে পাহাড়ি উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য আহ্বান জানিয়ে বলেন, সরকার কখনো পর্যটন সম্প্রসারণের নামে, কখনো ক্যাম্প স্থাপনের নামে সাজেক থেকে পাহাড়ি উচ্ছেদে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এখন মসজিদ নির্মাণ করে আবারো সেটলার পুনর্বাসনের মাধ্যমে পাহাড়িদের উচ্ছেদ করার ষড়যন্ত্র শুরু করে দিয়েছে। এর বিরুদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে।

মানববন্ধন থেকে বক্তারা অবিলম্বে সাজেক থেকে পাহাড়ি উচ্ছেদের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করা ও পাহাড়ি অধ্যুষিত পর্যটন এলাকায় মসজিদ নির্মাণ বন্ধ করার জোর দাবি জানিয়েছেন।


Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.